ক্রেমলিন শাসন ব্যবস্থার সর্বস্তরে পারিবারিক যোগসাজসের সাথে সংগ্রাম করার জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ. এই প্রশ্ন আলোড়ন তুলেছে মরদোভিয়া প্রজাতন্ত্রের প্রাক্তন গভর্ণর ও বর্তমানে সামারা জেলার গভর্ণর নিকোলাই মের্কুশকিনের পুত্রকে মরদোভিয়ার ভাইস-গভর্ণরের পদে নিয়োদ করা হওয়ায়. এই কারণেই রাশিয়ার সমস্ত মন্ত্রণালয় ও দপ্তরগুলিকে অলিখিত নির্দেশ দেওয়া হয়েছে নিয়োগ করার আগে প্রত্যেকটি প্রার্থীর পারিবারিক যোগাযোগ যাচাই করে দেখতে এবং সেরকম কিছু আবিস্কার করা গেলে প্রার্থীর পেশাদারী যোগ্যতা যাচাই করে দেখতে.

এমনিতে মের্কুশকিনের পুত্রকে ভাইস-গভর্ণরের পদে নিয়োগ করা কোনো অপরাধ নয়. রাশিয়ার আইনে উচ্চপদস্থ সরকারী কর্মচারীদের আত্মীয়দের নেতৃস্থানীয় পদে নিয়োগ করার উপর কোনো বাধানিষেধ নেই. কিন্তু ৩৪-বছর বয়সী আলেক্সেই মের্কুশকিন এর আগে একদিনের জন্যেও সরকারী চাকরি করেনি এবং বাণিজ্যিক সংস্থায় কাজ তাকে অপরিহার্য অভিজ্ঞতা দেয়নি. এর প্রেক্ষাপটে প্রশ্ন জেগেছে, যে পিতার সুরক্ষায় পুত্র ভাইস-গভর্ণরের পদ পায়নি তো? দুর্ভাগ্যক্রমে, আধুনিক রাশিয়ার ইতিহাসে এরকম উদাহরন কম নেই – বলছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র এ্যাকাডেমির বিশেষজ্ঞ বরিস শ্মেলোভ.-

বোধহয়, আধুনিক সমাজের অন্যতম সবচেয়ে নঙর্থক প্রকৃতি ফুটে ওঠে শাসনব্যবস্থার কাঠামোয় বিভিন্ন গোষ্ঠীর উদ্ভবে, যা বংশধর ও ঘনিষ্ঠ পরিচিতদের ঘিরে তৈরী করা হয়. বস্তুতঃ আমরা দেখতে পাই রাষ্ট্রকে ব্যক্তি মালিকানার অধীন করার প্রক্রিয়া, যখন বিভিন্ন গোষ্ঠী রাষ্ট্রীয় কর্মকান্ডের বিভিন্ন ক্ষেত্রকে কব্জা করে ও সরকারী পরিকাঠামোকে নিজেদের স্বার্থসিদ্ধির উদ্দেশ্যে ব্যবহার করে. এটা অত্যন্ত বিপজ্জনক. এটা দুর্নীতির প্রসারের অন্যতম কারণ – জোর দিয়ে বলছেন বরিস শ্মেলোভ.

রাশিয়ায় আজ সবচেয়ে আলোচিত দুর্নীতিবিরোধী মামলা চলছে প্রাক্তন প্রতিরক্ষামন্ত্রী আনাতোলি সের্দুকোভের বিরুদ্ধে. তাকে মন্ত্রীসভায় এনেছিল তার শ্বশুর ভিক্তর জুবকোভ, যখন সে প্রধানমন্ত্রীর পদে আসীন ছিল.

তবে রাশিয়ার সরকার বিপরীত উদাহরনও জানে. যেমন দম্পতি তাতিয়ানা গোলিকভা ও ভিক্তর খ্রিস্তেঙ্কো দীর্ঘকাল পাশাপাশি সাফল্যের সঙ্গে মন্ত্রীদের পদে কাজ করেছেন. বিদেশেও এরকম উদাহরনের অভাব নেই. যেমন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষপদে আসীন ছিলেন জর্জ বুশ সিনিয়র ও জর্জ বুশ জুনিয়র. বা প্রাক্তন মার্কিনী রাষ্ট্রপতি বিল ক্লিনটন ও বিদেশ সচিব হিলারি ক্লিনটনের কথাই ধরুন. বংশ পরম্পরায় চিকিত্সক বা চিত্রশিল্পীও তো কম হয় না বহু পরিবারে. সেরকম আমলা-মন্ত্রীদের মধ্যেই বা হতে পারবে না কেন?

পারিবারিক যোগসাজস এবং দুর্নীতির বিরুদ্ধে কড়া হাতে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত কিনা, সেই প্রশ্নে রাশিয়ার রাজনীতিবিদ ও বিশেষজ্ঞদের মত দ্বিধাবিভক্ত. রাষ্ট্রপতির তথ্যসচিব দমিত্রি পেসকোভ মেনে নেন, যে পারিবারিক যোগসাজস দুর্নীতির অন্যতম কারণ. তবে তার মতে দুর্নীতির শেকড় আরও অনেক গভীরে এবং পারিবারিক পরম্পরার সমস্যা রাশিয়ায় খুব তীক্ষ্ণ নয়.

সমাজতত্ত্ববিদ ও লেভাদা সেন্টার নামক জনসমীক্ষা তহবিলের অধ্যক্ষ লেভ গুদকোভ পারিবারিক পরম্পরার কারণ বলে মনে করছেন যোগ্য কর্মীর ঘাটতি. আমলা তার ঘনিষ্ঠদের ছাড়া আর কারও উপর ভরসা করতে পারে না. হয়তো দুর্বল পেশাদার, কিন্তু বিশ্বাসী – বলছেন গুদকোভ.-

স্বজনপোষন হয় তখনই, যখন বিশ্বাস, আস্থা, বেইমানী না হওয়ার গ্যারান্টীর দরকার হয়. তখনই ক্ষমতার ভাগবাঁটোয়ারা হয় স্বজনদের মধ্যে – বলছেন সমাজতত্ত্ববিদ.

ক্রেমলিন থেকে জানানো হয়েছে, যে অতঃপর স্বজন কাউকে উঁচু সরকারী পদে নিয়োগ করার জন্য প্রার্থীর গুণগত অগ্রাধিকার সবদিক থেকে প্রমাণ করতে হবে ও সেই প্রক্রিয়াকে হতে হবে সম্পূর্ণ স্বচ্ছ.