২৬৬তম রোমান পোপ – পোপ ফ্রান্সিস্ক তাঁর পবিত্র সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হয়েছেন. ভ্যাটিকানে প্রধান গির্জার সামনের চত্বরে এই অনুষ্ঠান হয়েছে. কার্ডিনাল হোর্খে মারিও বের্গোলিও তাঁর ক্ষমতার প্রতীকগুলি পেয়েছেন ও উপস্থিত বহু সহস্র ধর্মভীরু মানুষদের সঙ্গে একত্রে প্রার্থনা করেছেন নিজের আগামী পোপ হিসাবে কর্মের জন্য. “রেডিও রাশিয়া” থেকে সাংবাদিক প্রতিনিধি এই অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন.

পবিত্র পিওতরের নামাঙ্কিত চত্বরে ধর্ম বিশ্বাসীরা এই অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার বেশ কয়েক ঘন্টা আগে থেকেই জমা হতে শুরু করেছিলেন. নব নির্বাচিত পোপকে দেখার জন্য অনেকেই এখানে এসেছিলেন.

পোপ ফ্রান্সিস্ক, সাদা পোষাক পরে উপস্থিত হয়েছিলেন, তিনি এই চত্বরে এসেছেন এক খোলা ও বর্ম বিহীণ পোপের গাড়ীতে. তাঁকে কিছুটা বিব্রত দেখাচ্ছিল, তিনি উপস্থিত লোকদের স্বাগত জানিয়েছেন, তাঁদের আশীর্বাদ করেন নি. এমনকি ক্যাথলিক বিশ্বের জন্য এই ধরনের দায়িত্বপূর্ণ সময়েও পোপ সকলকে আশ্চর্য করে দেওয়া বন্ধ করেন নি: তিনি গাড়ী থেকে নেমে এক প্রতিবন্ধীর সঙ্গে করমর্দন করেন. এটা উপস্থিত লোকদের হর্ষের কারণ হয়েছে ও সকলে হর্ষধ্বনি করে উঠেছেন. বর্তমানের পোপ শুধু তাঁর সিংহাসনেই আরোহণ করেন নি – তিনি ইতিমধ্যেই জনপ্রিয় হয়েছেন. তিনি আশা ও বিশ্বাস ফিরিয়ে দিতে পেরেছেন – পবিত্র পিওতরের চত্বরে “রেডিও রাশিয়ার” কাছে খুবই আবেগ তাড়িতা হয়ে ভেনিসের এক নগর বাসিনী ফিরানেল্লা বলেছেন:

“আমি ওঁকে দেখে এত আনন্দিত হয়েছি, যে, আমার এমন কি কথায় কুলোচ্ছে না! আমি নিজেই বিগত কিছু সময় ধরে ধর্ম বিশ্বাস ও ধর্মাচরণ নিয়ে সমালোচনা করছিলাম, প্রায় গির্জায় যাওয়া বন্ধ করেছিলাম, কিন্তু এবারে আমি নিশ্চয়ই বিশ্বাসে ফিরব. আমাকে সেখানে নিয়ে যাবেন আমার পোপ ফ্রান্সিস্ক”.

বড় সব টেলিভিশনে পর্দায় দেখতে পাওয়া যাচ্ছিল যে, পবিত্র পিওতরের চত্বরে কি হচ্ছে: কার্ডিনালদের আনুষ্ঠানিক পদযাত্রা, পোপের জন্য নির্দিষ্ট পোষাক পরিধান, আর তারই সঙ্গে পিওতরের সমাধিতে প্রার্থনা. পরে চত্বরে পোপ ফ্রান্সিস্ক পেয়েছিলেন ক্ষমতার প্রধান প্রতীক গুলি, যার মধ্যে ছিল পোপের আংটি, এবারে তা সোনার নয়, বরং রূপোর. কিছু সন্দেহ বাতিক লোক অবশ্য ২৬৬তম রোমান পোপের সাধাসিধে আচরণ ও বিনয়ের মধ্যে অবিশ্বাস করার মতো বিষয় খুঁজে পাচ্ছেন. তাঁরা জোর দিয়ে বলছেন যে, এটা স্রেফ লোক দেখানো ব্যাপার, যাতে “লোকের ভাল লাগে”. অন্যেরা মনে করেন যে, পোপ – একজন সংস্কার সাধক ও তিনি ধীরে ধীরে ক্যাথলিক গির্জার নিয়ম বদল করবেন. কিন্তু বেশীর ভাগই বিশ্বাস করেন যে, এটা সেরকম নয়. পোপ নিজে যথেষ্ট সাধাসিধে ও বিনয়ী. তিনি তাঁর ব্যক্তিত্বের প্রতি এত বাড়াবাড়ি রকমের মনোযোগের কারণে বিব্রত বোধ করছেন. আর যদি কোন রকমের বদলের অপেক্ষা করতেই হয়, তবে তা শুধু ভাল দিকেই. তিনি পোপ দ্বিতীয় জন পল ও ষোঢ়শ বেনেডিক্টের ঐতিহ্য পালন করে যাবেন, এই রকম বিশ্বাস নিয়ে মধ্য আফ্রিকা থেকে আসা পর্যটক মহিলা গাবো ক্ল্যারিসা বলেছেন:

“তিনি সমকামী বিবাহ ধর্ম সিদ্ধ হতে দেবেন না, তিনি গর্ভপাত ও স্বেচ্ছামৃত্যু সমর্থন করবেন না. এটা হতে পারে না, তার কারণ পোপ তা চান না বলে নয়, এটা অসম্ভব, কারণ ঈশ্বর তা চান না. আর আমাদের পোপ ভগবানের কাছ থেকেই এসেছেন”.

পবিত্র পিওতরের সিংহাসনে অধিষ্ঠান অনুষ্ঠান শেষ হয়েছে উত্সবের কৃতজ্ঞতা জানিয়ে প্রার্থনা সম্মিলিত ভাবে করে. এই প্রার্থনা সভায় উপস্থিত ছিলেন বিশ্বের ১৮০টি দেশের প্রধান ও প্রতিনিধিরা.