উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পরবর্তী বিবৃতি দিয়েছে, যা প্রমাণ দেয় যে, উত্তর কোরিয়ার নেতৃবৃন্দ পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করতে প্রস্তুত, তবে শুধু দেশের সার্বভৌমত্ব ও নিরাপত্তা রক্ষার জন্য. মঙ্গলবার “ইন্টারফাক্স” সংবাদ এজেন্সি জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে যে, “মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার মাঝে ততদিন কোনো সংলাপ হতে পারে না, যতদিন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র শত্রুভাবাপন্ন নীতি অনুসরণ করবে, আর উত্তর কোরিয়া সোজা ও শেষ পর্যন্ত এগিয়ে যাবে সোনগুন নীতি অনুসরণ করে”. পিয়ংইয়ংয়ে উত্তর কোরিয়ার প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্রমবর্ধমান শত্রু ভাবের উল্লেখ করা হচ্ছে, তবে সেই সঙ্গে নিশ্চয়োক্তি করা হচ্ছে যে, উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক নীতির একমাত্র লক্ষ্য হল “আত্মরক্ষা”. পিয়ংইয়ংয়ে জোর দিয়ে বলা হয়েছে, “উত্তর কোরিয়ার হাতে যে পারমাণবিক অস্ত্র আছে তা হল সর্বশক্তিমান তরোয়ালের মতো, যা দেশের সার্বভৌমত্ব ও নিরাপত্তা রক্ষা করছে, এবং যতদিন পারমাণবিক বিপদ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শত্রুভাবাপন্ন নীতি বিদ্যমান থাকবে, ততদিন কেউ তাকে ছুঁতে পারবে না”.