এটা ঘটেছিল চীনের সিন বংশের পতনের পরের বছর. আজ, একশ বছর পরে, শত শত তিব্বতী প্রবাসী নিউ-ইয়র্কে রাষ্ট্রসঙ্ঘে চীনা প্রতিনিধিদলের ভবনের কাছে মিছিল করে প্রতিবাদ জানায়, যাকে তারা অভিহিত করছে চীনা কমিউনিস্ট পার্টির তরফ থেকে অত্যাচারের প্রতিবাদ. চীনা কমিউনিস্ট পার্টি তিব্বতে নিজের নিয়ন্ত্রণ স্থাপন করে ১৯৫০ সালে. সে সময় থেকে, বিদেশে অবস্থিত তিব্বত সরকারের তথ্য অনুযায়ী, এ অঞ্চলে আদি অধিবাসীদের সংস্কৃতি ও ধর্মবিশ্বাস দমনের নীতি পরিচালিত হচ্ছে. এই দমনের ফলে দশ লক্ষেরও বেশি তিব্বতী নিহত হয়েছে. অনেকেই প্রতিবেশী নেপাল, ভারত ও ভুটানে পালাতে বাধ্য হয়েছে. তিব্বতের স্বাধীনতা ঘোষণার শতবার্ষিকীর কয়েক দিন আগে শত-তম তিব্বতী চীনা দখলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ স্বরূপ গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মাহুতি দিয়েছে. তিব্বতী প্রবাসীদের প্রতিবাদ আন্দোলন এবং কনসার্ট ও অন্যান্য অনুষ্ঠান আয়োজিত হচ্ছে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে.