মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা আসন্ন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-আসিয়ান এবং পূর্ব এশিয়া শীর্ষ সম্মেলনে দক্ষিণ চীনা ও পূর্ব চীনা সাগরের অঞ্চলে পরিস্থিতি সংক্রান্ত প্রশ্ন তুলতে চান. ওয়াশিংটনে ব্রুনেইয়ের সুলতান হাসানাল বলকিয়াহ-র সাথে সাক্ষাতের পরে ওবামা সাংবাদিকদের বলেন যে, আসন্ন শীর্ষ সম্মেলনগুলিতে ওয়াশিংটন “সামুদ্রিক প্রশ্নগুলি” আলোচনা করতে চায়. মার্কিন রাষ্ট্রপতি উল্লেখ করেন যে, “এ অঞ্চলে সামুদ্রিক প্রশ্নে গুরুতর উত্তেজনা বিদ্যমান আছে”. ব্রুনেই ২০১৩ সালে আসিয়ান গ্রুপের সভাপতিত্ব করছে. তিনি আরও জানান যে, ২০১৩ সালে আসিয়ান দেশগুলি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের সম্মিলিত নৌ-মহড়া পরিকল্পিত আছে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ক্ষেত্রে সমুদ্রে উদ্ধার-মূলক অভিযান অনুশীলনের জন্য. আসিয়ানের একসারি দেশ উদ্বেগ প্রকাশ করছে যে, চীন দক্ষিণ চীনা সাগরে নানশা (স্প্র্যাটলি), সিশা (পারাসেল) দ্বীপপুঞ্জে উপর নিজের সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার জন্য বল প্রয়োগ করতে পারে. চীন ছাড়া এ সব দ্বীপের দাবি করছে ভিয়েতনাম, ফিলিপাইন, মালয়েশিয়া ও ব্রুনেই. তা এ অঞ্চলে উত্তেজনা জাগাচ্ছে. একই সঙ্গে, চীন মনে করে যে, দক্ষিণ চীনা সাগরে বিতর্কিত দ্বীপগুলির সমস্যা মীমাংসা করা উচিত আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে. সেই সঙ্গে, বেজিং সীমান্ত সমস্যার আন্তর্জাতিকীকরণের বিরুদ্ধে সতর্ক করে দিচ্ছে, এ কথা জোর দিয়ে বলে যে, তা মীমাংসিত হওয়া উচিত্ দ্বিপাক্ষিক ভিত্তিতে শুধু স্বার্থ সংশ্লিষ্ট দেশগুলির দ্বারা. পূর্ব চীনা সাগরে দিয়াওইউইদাও দ্বীপপুঞ্জ, যাকে জাপানী পক্ষ সেনকাকু দ্বীপপুঞ্জ বলে, তা নিয়ে চীন ও জাপানের মাঝে মতভেদ দু দেশের মাঝে সম্পর্কের তীব্র অবনতি ঘটিয়েছে.