দক্ষিণ কোরিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সোমবার “কি রিসল্ভ” নামে ব্যাপক পরিসরের সামরিক মহড়া শুরু করেছে, যা পরিচালনার পরিকল্পনা উত্তর কোরিয়ার সাথে সম্পর্ক তীব্র করে তুলেছে. সংবাদ এজেন্সি “ইয়োনহাপ” জানিয়েছে যে, এই সামরিক মহড়ায় অংশগ্রহণ করবে প্রায় ১০ হাজার দক্ষিণ কোরীয় এবং প্রায় সাড়ে ৩ হাজার মার্কিনী সামরিক কর্মচারী এবং মহড়া চলবে ২১শে মার্চ অবধি. বর্তমানে দক্ষিণ কোরিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সশস্ত্র বাহিনী ফোল ঈগল নামে মহড়া চালাচ্ছে, যা শুরু হয়েছে পয়লা মার্চ এবং চলবে ৩০শে এপ্রিল পর্যন্ত. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও কোরিয়া প্রজাতন্ত্রের যৌথ মহড়ার সময় পরম্পরাগতভাবে দক্ষিণ কোরিয়া হুমকি দিয়ে তাকে তার ভূভাগে আক্রমণ হলে প্রত্যুত্তরে আঘাত হানার.তাছাড়া উত্তর কোরিয়ার কর্তৃপক্ষ একাধিকবার ঘোষণা করেছে যে, আগ্রাসনের ক্ষেত্রে তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উপকূলে পৌঁছোতে সক্ষম এমন রকেট ব্যবহার করবে. গত সপ্তাহে উত্তর কোরিয়া এ মহড়া চালানোয় প্রতিবাদে দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে অনাক্রমণ এবং অ-পারমাণবিকীকরণ সংক্রান্ত চুক্তি বাতিল করেছে. তাছাড়া, অগ্নি সংবরণ সংক্রান্ত চুক্তির ক্রিয়াও বন্ধ করা হয়েছে, যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল ১৯৫০-১৯৫৩ সালের কোরীয় যুদ্ধ শেষ করার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে, যে লড়াই করছিল রাষ্ট্রসঙ্ঘের পতাকা তলে. সোমবার উত্তর কোরিয়া “ফানমুনজোম” আলাপ-আলোচনার কেন্দ্রে দুই কোরিয়া রাষ্ট্রের সামরিক প্রতিনিধিদের মাঝে জরুরী যোগাযোগের একমাত্র টেলিফোন লাইনও কেটে দিয়েছে.