ভেনেজুয়েলার জনগন সে দেশের সরকার প্রধান হিসেবে যাকেই নির্বাচন করবে তাঁর সাথে রাশিয়া সম্পর্ক তৈরীতে প্রস্তুত আছে। রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেরগেই ল্যাভরোভ ''রাশিয়া-১'' টেলিভিশন চ্যানেকে দেওয়া সাক্ষাতকারে আস্থার সাথে বলেন, অন্য রাষ্ট্রগুলো ভেনেজুয়েলার রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপ করবে না।

 ভেনেজুয়েলার জনগনের ভোটকে রাশিয়া শ্রদ্ধা জানাবে এবং আগামীতে এ মহাদেশের অন্যান্য রাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নের ধারা বজায় রাখবে। ওই সব দেশের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অনেক ইতিবাচক পরিবর্তন এনেছেন হুগো চাভেস। বিগত বছরগুলো দক্ষিণ আমোরিকা মহাদেশের দেশগুলোর সাথে রাশিয়ার কূটনৈতিক সম্পর্ক অনেক ঘনিষ্ঠ হয়েছে। রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ভাষায়, “হুগো চাভেস যে ঐতিহ্য শুরু করেছিলেন তাই শুধুমাত্র দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়নে সাহায্য করবে। চাভেসের রাজনীতি তা মূলত পুরো মহাদেশজুড়ে ব্যাপক সমর্থন পায়। ল্যাভরোভ বলেন, যে কোন পরিস্থিতিতেই দীর্ঘ মেয়াদী বিভিন্ন প্রকল্প যেমনঃ সামরিক প্রযুক্তি, জ্বালানী ও অর্থনীতিসহ আরো সব চুক্তি দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠি করছে। তা শুধু রাশিয়া-ভেনিজুয়েলার সম্পর্কের ক্ষেত্রেই নয় বরং অন্যান্য দেশের জন্য প্রযোজ্য।“

কে এখন দেশ পরিচালনা করবে এবং দেশ পরিচালনার নীতিও বা কেমন হবে?। বলা যেতে পারে যে, ক্ষমতায় আসার লড়াই শুরু হয়ে গেছে। সাবেক উপ-রাষ্ট্রপতি নিকলাস মাদুরো হুগো চাভেসের নীতি অনুসরণ করার ঘোষণা দিয়েছেন। যিনি ইতিমধ্যে ভেনিজুয়েলার ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নিয়েছেন। আগামী ৩০ দিনের মধ্যেই নির্বাচন আয়োজনের ঘোষণাও দিয়েছেন তিনি।

মাদুরোর প্রধান প্রতিপক্ষ হচ্ছেন বিরোধীদলের প্রার্থী এনরিকে কাপ্রিলেস। হুগো চাভেসের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে বলেন, যদিও চাভেস আমার প্রতিপক্ষ ছিলেন কিন্তু তিনি আমার কখনো শত্রু ছিলেন না। নিকলাস মাদুরোর বিষয়ে কাপ্রিলেস বলেন, এখনও রাষ্ট্রপতি নির্বাচন করা হয় নি, তাই রাষ্ট্র পরিচালনা করার অধিকার করোই নেই।

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেরগেই ল্যাভরোভ স্বচ্ছ রাজনৈতিক প্রতিদন্ধিতা হবে বলে আশা করছেন। তিনি বলেন, “চাভেসের মৃত্যুতে ভেনেজুয়েলায় ও এর বাইরে আমরা যত সমবেদনা শুনতে পেয়েছি তার মধ্যে কাপ্রিলেসও রয়েছেন এবং তিনি সঠিক বিবৃতি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন যে, এ হারানোর শোকে তিনিও ব্যাথিত এবং চাভেস ছিলেন তাঁর শুধু প্রতিপক্ষ। কোন শত্রুতা চাভেসের সাথে তাঁর ছিল না। আমার মতে, এটি শ্রদ্ধার সম্পর্ক থেকেই এসেছে যা এখন ভেনেজুয়েলায় ঘটছে। আশা করছি, রাজনৈতিক প্রক্রিয়া ও নির্বাচন পূর্ববর্তী লড়াই তা এ ধারাবাহিকতাই এগিয়ে চলবে।

ভেনেজুয়োলার জনগনের ভোটকে রাশিয়া শ্রদ্ধা জানাবে। মস্কো একই সাথে মনে করছে যে, নির্বাচনে যেই জয়ী হোক না কেন মস্কোর সাথে ভেনেজুয়েলার সম্পর্কে কোন প্রভাব ফেলবে না।