বৃহস্পতিবারে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য রাষ্ট্র গুলি ঐক্যমতে পৌঁছে এক সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যা উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরও কঠোর করেছে. এই নিষেধাজ্ঞা নেওয়া হয়েছে গত ১২ই ফেব্রুয়ারীতে উত্তর কোরিয়াতে পারমানবিক পরীক্ষা করার পরিপ্রেক্ষিতে. সিদ্ধান্তে এই দেশের তিনজন সরকারি কর্মীর বিরুদ্ধে বাধা নিষেধ আরোপ করা হয়েছে, যারা উত্তর কোরিয়ার সমরাস্ত্র কর্পোরেশন, ব্যলিস্টিক রকেট নির্মাণের যন্ত্রপাতি ও রকেট এবং পারমানবিক অস্ত্র নির্মাণ সংস্থায় কাজ করেন. এছাড়া এই দলিলে উত্তর কোরিয়াকে আহ্বান করা হয়েছে পারমানবিক অস্ত্র প্রসার রোধ চুক্তিতে যোগ দেওয়ার জন্য ও কোরিয়া উপদ্বাপ এলাকাকে পরমাণু মুক্ত করার জন্য ছয় পক্ষের আলোচনাতে যোগ দেওয়ার জন্য.

রাষ্ট্রসঙ্ঘে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্থায়ী প্রতিনিধি স্যুজান রাইস ঘোষণা করেছেন যে, রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা তৈরী আছেন বাড়তি ব্যবস্থা উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে নেওয়ার জন্য, যদি সেই দেশ প্ররোচনা দেওয়া বন্ধ না করে ও পারমানবিক অস্ত্রের এবং ব্যালিস্টিক রকেটের পরীক্ষা চালিয়ে যায়.

রাষ্ট্রসঙ্ঘের মহাসচিব বান কী মুন রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের নেওয়া উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে সিদ্ধান্তকে ইতিবাচক ভাবেই নিয়েছেন ও তিনি উল্লেখ করেছেন যে, উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে সিদ্ধান্ত এখন এক নির্দিষ্ট ইঙ্গিত পৌঁছে দেবে যে, আন্তর্জাতিক সমাজ তাদের পারমানবিক অস্ত্র আয়ত্ত্ব করার জন্য কাজকর্ম সহ্য করবে না.