অধিকাংশ পারমানবিক বিদ্যুত কেন্দ্রগুলি বন্ধ করে দেওয়ার পরে জ্বালানী শক্তি – তরল গ্যাস কেনার খাতে জাপানের খরচা অনেক বেড়েছে. উপরন্তু টোকিও বাধ্য হচ্ছে গ্যাস নির্গমনের পরিমান বিষয়ক নিজস্ব বাধ্যবাধকতা পুণর্বিবেচনা করে দেখতে. জাপানের অর্থমন্ত্রক জানিয়েছে, যে ২০১২ সালে বাণিজ্যিক ঘাটতি রেকর্ড ছুঁয়েছে – ৭৮৫৫ কোটি ডলারের সমান. এই বিপুল ঘাটতি হওয়ার অন্যতম মুখ্য কারন - দেশকে বিদেশ থেকে প্রচুর পরিমানে জ্বালানী কিনতে হচ্ছে, ফুকুসিমা-১ বিদ্যুতকেন্দ্রে দুর্ঘটনার পরে জাপান তার অধিকাংশ পারমানবিক বিদ্যুত কেন্দ্র বন্ধ করে দেওয়ায়.

দেশে জ্বালানী খনিজদ্রব্যের অভাব থাকায় গত শতকের ৭০-এর দশকে জাপান পারমানবিক বিদ্যুতের উন্নয়ন ঘটাতে শুরু করেছিল. বর্তমানে দুর্ঘটনার পরে জাপানে ৫০টি পারমানবিক বিদ্যুত কেন্দ্রের মধ্যে শুধু ২টি চালু রয়েছে.