কায়রোর কেন্দ্রস্থলে সেমিরামিস হোটেলের লবিতে ছোঁড়া একটি বোতল বোমায় আগুন দাউ দাউ করে জ্বলে উঠেছে. হতাহতের সংখ্যা এখনো জানা যায়নি. পাঁচতারা হোটেলটি নীল নদীর তীরে, যেখানে সমাবেশকারীদের সাথে পুলিশদের সংঘর্ষ চলছে. এর প্রাক্কালে চরমপন্থী যুবকরা জোর করে ঐ হোটেলে ঢোকার চেষ্টা করেছিল. পার্শ্ববর্তী শেফার্ড হোটেল অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে. মঙ্গলবার অপরাহ্নে সমস্ত অতিথিদের হোটেল ছেড়ে যাওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে. পাঁচদিন ধরে মিশরের শহরগুলিতে আন্দোলনকারীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ লাগাতার চলছে. ২৫শে জানুয়ারী বিপ্লবের দ্বিতীয় বার্ষিকী পূর্তি উপলক্ষে বিশৃঙ্খলা শুরু হয়েছিল. সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে পোর্ট-সঈদ শহরে – মাঠে মারামারি করার অভিযোগে ফুটবলপ্রেমীদের মৃত্যুদন্ড ঘোষনা করার পরেই সেখানে বিদ্রোহের আগুন জ্বলে ওঠে. তিনটি প্রদেশ – পোর্ট-সঈদ, সুয়েজ ও ইসমাইলিয়ায় ৩০ দিনের জন্য জরুরী অবস্থা জারি করা হয়েছে ও সেখানকার রাজধানীগুলোতে কার্ফিউ জারি কর হয়েছে. সরকারী ভাষ্য অনুযায়ী, এই ক’দিনের গোলোযোগে মিশরে ৫০ জনেরও বেশি লোকের জীবনহানি হয়েছে.