ট্র্যাজিকমেডি “বরফি”, যেখানে রাজ কাপুরের নাতি প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন ও এই বারে যে ছবি ২০১২ সালের সবচেয়ে সেরা সিনেমা হিসাবে “ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড” পেয়েছে গত কয়েকদিন আগে মুম্বাই শহরের এক অনুষ্ঠানে, তা রাশিয়াতে দেখানোর জন্য কেবল টিভি চ্যানেল ইন্ডিয়া টিভি কিনতে চলেছে. এই বিষয়ে সব রকমের ব্যবসায়িক কথাবার্তা প্রায় শেষ হওয়ার পথে বলে “রেডিও রাশিয়ার” প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন “ইন্ডিয়া টিভি” চ্যানেলের প্রধান সম্পাদক ভ্লাদিমির শেভারদেনিদজে. – আমাদের দর্শকরা দেখতে চান ভারতীয় সিনেমার সেরা শিল্পীদের করা সবচেয়ে ইন্টারেস্টিং ও বিখ্যাত কাজ গুলি. আর আমরাও তাদের বহু রকমের “খ্যাতির পদক” পাওয়া ভারতীয় সিনেমা গুলিকে দেখানোর সুযোগ হাত ছাড়া করি না. তিনি বলেছেন:

“এখানে ইন্ডিয়া টিভি চ্যানেলের দর্শক সংখ্যা এখন ৩ কোটি ৮০ লক্ষ মানুষ. রাশিয়া ও স্বাধীন রাষ্ট্র সমূহের সমস্ত জায়গারই এরা লোক, এদের মধ্যে যেমন বয়স্ক, তেমনই বহু অল্প বয়সী লোকও রয়েছেন, যারা ভারতের সিনেমা সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত হতে চান. আমাদের ২৪ ঘন্টা চলা এই চ্যানেলে আমরা দেখিয়ে থাকি নানারকমের হিট ছবি ও বিগত বছর গুলিতে তোলা ভারতীয় সিনেমা, যা আগে আমাদের দর্শকদের ভাল লেগেছিল ও যে সমস্ত অভিনেতা অভিনেত্রীরা এখানে জনপ্রিয়, তাছাড়া ভারতীয় বিভিন্ন রাজ্যের দেখার মতো জায়গার উপরে তোলা ফিল্ম, আয়ুর্বেদ, যোগাসন, ভারতীয় সঙ্গীত ও নৃত্য নিয়ে তোলা ছবিও. প্রতি মাসে আমাদের টেলিভিশন চ্যানেলে দেখানো হয়ে থাকে প্রায় ১০০রও বেশী ভারতীয় সিনেমা, তার মধ্যে অর্ধেকই নতুন সিনেমা”.

সাত বছর আগে, যখন রাশিয়ার কেবল টিভি চ্যানেলের হোল্ডিং কোম্পানী “রেড মিডিয়া”, যার মধ্যে এই “ইন্ডিয়া টিভি” রয়েছে, তারা এই নতুন চ্যানেল শুধু শুরু করেছিল, তখন এই চ্যানেল কতটা স্বয়ং নির্ভর হতে পারবে, তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ ছিল, যা শুধু ভারতীয় বিষয়ের উপরেই নির্ভর করে বানানো হয়েছে. কারণ আমাদের দেশে আগে খুবই জনপ্রিয় ভারতীয় সিনেমা গুলি গত শতকের নব্বইয়ের দশকে জায়গা ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছিল হলিউড ও ইউরোপের অন্যান্য দেশে তোলা সিনেমা গুলির কাছে. কিন্তু আজ “রেড মিডিয়ার” এই চ্যানেলের দর্শকদের প্রশ্নোত্তর থেকে বোঝা সম্ভব হয়েছে যে “ইন্ডিয়া টিভি” খুবই জনপ্রিয় চ্যানেল. আমরাও এটা টের পাই চ্যানেলের ইন্টারনেট সাইটে লোকের বক্তব্য দেখেই – এটাই ব্যাখ্যা করে এই ইন্টারনেট সাইটের প্রধান সম্পাদক ইউরি পদস্তোলনিকভ বলেছেন:

“আমাদের সাইটে এর মধ্যেই ৪ কোটি লোক এই সাইটে এসেছেন ও প্রত্যেক দিনই সাইটের কনটেন্টের সঙ্গে পরিচিত হচ্ছেন তিন হাজারেরও বেশী গ্রাহক, আমরা তারই সঙ্গে নানা রকমের সামাজিক সাইটেও রয়েছি, যেমন রাশিয়ায় জনপ্রিয় “আদ্নোক্লাসনিকি”, “ইউ টিউবে”, “ফেসবুক” ইত্যাদিতে. খুবই জনপ্রিয় হয়েছে আমাদের ইন্টারনেট ফোরাম. তাতে কোন না কোন সিনেমার ভালমন্দ নিয়ে রীতিমতো তর্ক শুরু হয়ে যায়, কে কি রকম অভিনয় করেছেন, কোন বিখ্যাত অভিনেতা কি ঠিক করেছেন ইত্যাদি নিয়ে. অনেক রুশ দর্শকই খুব অভিভূত ভাবেই অমিতাভ বচ্চন, মিঠুন চক্রবর্তী, শাহরুখ খান, ঐশ্বরিয়া রাই, অজয় দেবগন, অক্ষয় কুমারের অভিনয়ের ভক্ত হয়ে আছেন”.

২০১২ সালে ইন্ডিয়া টিভি চ্যানেলে দেখানো সমস্ত প্রযোজনার মধ্যে বিজয়ী হয়েছে এই চ্যানেলের এক অনুষ্ঠান যা “শাহরুখ খানের সঙ্গে তারকার কাজের দিন” নামে দশটি সিরিজের এক তথ্য চিত্র.

আর ২০১৩ সালের সবচেয়ে অপেক্ষায় থাকা প্রযোজনার মধ্যে, যা ইতিমধ্যেই হিট বলে প্রচার করা শুরু হয়েছে আর যা এই চ্যানেল নিজেদের দর্শকদের জন্য পাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে, তা হল সিরিয়াল “কভি কভি”. এই সিরিয়ালের প্রথম ৬৯টি অধ্যায় “ইন্ডিয়া টিভি” চ্যানেলে দেখানো হবে মার্চের শুরু থেকে. “রেডিও রাশিয়ার” প্রতিনিধিকে এই চ্যানেলের কর্তারা জানিয়েছেন যে, তাঁরা এখন বিখ্যাত বাঙালী চিত্র পরিচালক সত্যজিত রায়, শ্যাম বেনেগাল ইত্যাদি বিশ্ব পরিচিত লোকদের ও চেন্নাই শহরে তোলা সিনেমাও দেখানোর জন্য কথাবার্তা চালাচ্ছেন – সেই সমস্ত সিনেমা নিয়েই কথা হচ্ছে, যেগুলিকে বলা হয়ে থাকে আর্ট ফিল্ম, আর যেই গুলি আরও বেশী করেই ভারতীয় সিনেমায় নিজেদের জায়গা করে নিচ্ছে.