১৯টি দেশের থেকে দায়িত্ব প্রাপ্ত ও সম্পূর্ণ মর্যাদার রাষ্ট্রদূতদের কাছ থেকে সেই সব রাষ্ট্রের নিয়োগ সংক্রান্ত সাক্ষ্য পত্র গ্রহণ অনুষ্ঠানে আজ ক্রেমলিনে রুশ রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন যে, রাশিয়া নিকটপ্রাচ্যে রাষ্ট্রসঙ্ঘের কেন্দ্রীয় ভূমিকায় থাকাকেই সমর্থন করে যাবে. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি মনে করিয়ে দিয়েছেন যে, সিরিয়ার বিরোধ প্রায় দুই বছর ধরে শান্ত হওয়ার কোন লক্ষণই দেখাচ্ছে না. লিবিয়াতে বিপর্যয়, যার পরে অস্ত্রশস্ত্রের প্রসার হয়েছে নিয়ন্ত্রণহীণ পরিস্থিতিতে, তা মালি দেশের বর্তমান অবস্থার জন্যও দায়ী, এই সবেরই পরিণতিতে ট্র্যাজেডির ঘটনা হয়েছে আলজিরিয়াতে সন্ত্রাসবাদী কাণ্ড. পুতিন বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন যে, এই ধরনের খুব একটা সহজ নয় এমন বিশ্ব পরিস্থিতিতে রাশিয়া এর পরেও “আইনের শাসনের” পক্ষেই সমর্থন করা চালিয়ে যাবে ও “রাষ্ট্রসঙ্ঘের কেন্দ্রীয় ভূমিকাকেই” সমর্থন করে যাবে.

পুতিন বলেছেন – “আমাদের দেশ রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য দেশ হিসাবে সম্পূর্ণ ভাবেই বিশ্বের নিরাপত্তা নিয়ে নিজেদের দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে সচেতন এবং সমস্ত সর্বজনীন সমস্যার সমাধানের জন্য নিজেদের সহকর্মী দেশ গুলির সঙ্গে যৌথ কাজকর্ম চালিয়ে যাওয়ার জন্যই লক্ষ্য রেখে যাবে, যার ফলে তৈরী হতে থাকবে সম্মিলিত ভাবে ইতিবাচক কর্মের তালিকা”.