আজ থেকে ঠিক ২ বছর আগে দোমোদেদোভা বিমান বন্দরে বিস্ফোরমে ৩৭ জন নিহত হয়েছিল. আজ রাশিয়ার তদন্তকারী কমিটির মুখপাত্র ভ্লাদিমির মারকিন জানিয়েছেন, যে তদন্তের কাজ প্রায় সমাপ্তির মুখে.

সন্ত্রাসবাদী আক্রমণের মুখ্য সংগঠক ছিল ইমারত ককেশাস নামক অপরাধমুলক গোষ্ঠীর নেতা দোকু উমারভ, তার চেলারা ইঙ্গুশেতিয়ার ২০-বছর বয়সী গ্রামবাসী মাগমেদ ইভলোয়েভকে দোমোদেদোভায় আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটানোর জন্য তৈরি করেছিল. শুধু মনস্তাত্বিক দিক থেকেই নয়. আত্মঘাতীর রক্ত পরীক্ষা করে কয়েকরকম কড়া ড্রাগসের উপস্থিতি ধরা গেছে. সবমিলিয়ে দলটায় ছিল মোটামুটি ৩৫ জন.

২০১২ সালের মার্চ মাসে ইঙ্গুশেতিয়ায় বিশেষ সামরিক অভিযান চালিয়ে ঐ সন্ত্রাসবাদীদের ঘাঁটি ধ্বংস করা হয়. ১৭ জন গুন্ডাকে তখন খতম করা হয়, ৪ জনকে জীবিত অবস্থায় ধরা হয়.

ঐ মর্মন্তুদ ঘটনার পরে রাশিয়ার বিমান বন্দরগুলির নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও জোরদার করা হয়েছে. তবে রাশিয়ার ও বিদেশের বিশেষজ্ঞদের মতে এয়ারপোর্ট ও রেলস্টেশনের নিরাপত্তা শতকরা একশো ভাগ সুনিশ্চিত করা অসম্ভব.