বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাশিয়াকে একটি বিশ্বস্থ বন্ধু রাষ্ট্র বলে অভিহিত করেছেন। তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে এর প্রমাণ আমরা পেয়েছি এবং ওই সময়ে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন আমাদের জনগনের সাহায্যে এগিয়ে এসেছিল। রাশিয়ার বার্তাসংস্থা ইতার-তাসকে দেওয়া এক বিশেষ সাক্ষাতকারে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রসঙ্গত, শেখ হাসিনা আজ সোমবার তিনদিনের সফরে মস্কো আসবেন। চার দশক পর এটি হবে বাংলাদেশের কোনো শীর্ষ নেতার প্রথম মস্কো সফর। এর আগে ১৯৭২ সালের এপ্রিলে মস্কো সফরে গিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। শেখ হাসিনা আরও বলেন, মূলত এই বিষয়টির কারণেই মস্কো সফর আমাদের কাছে অনেক গুরুত্ব বহন করছে এবং দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক যখন ৪০ বছরে পা দিয়েছে ঠিক তখনই এ সফর অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, “দেশের অনেক কঠিন সময় আমরা পাড়ি দিয়েছি এবং তা আমাকে আরও আত্ববিশ্বাসী করে তুলেছে। আমি আশাবাদী আমাদের সম্পর্কের এক নতুন দ্বার এবার উন্মোচিত হবে”।

এদিকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর রাশিয়া সফরের গুরুত্ব সম্পর্কে আমরা শ্রোতাদের কাছে ফেসবুকে জানতে চেয়েছিলাম। অনেকেই তাঁদের গুরুত্বপূর্ণ মতামত জানিয়েছেন। যেমন মাহফুজুর রহমান লিখেছেন, “আশাকরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই সফর অনেক ফলপ্রসূ হবে, সেই সাথে এই সফরের মাধ্যমে বাংলাদেশ এবং রাশিয়ার সর্ম্পক আরো গভীর হবে এই প্রত্যাশা এবং রাশিয়া বাংলাদেশের উন্নয়নে আরো সহযোগিতা করবে”।

“দু দেশের সম্পর্ক আরো গভীর হোক। আমাদের দেশের জন্য রাশিয়া ভাল কিছু করুক, এই কামনা করি”, বলেছেন সোহেল রানা।

সিদার্থ সরকার বলেছেন “বাংলাদেশ-রুশ সু-সর্ম্পক আরো আন্তরিক হোক” ।