সিরিয়ার সরকার এবং সিরিয়ার বিরোধীপক্ষ দেশে শান্তি বাহিনী মোতায়েনের প্রয়োজনীয়তায় একমত হয়েছে, দামাস্কাসে বলেছেন রাষ্ট্রসঙ্ঘ ও আরব রাষ্ট্র লীগের বিশেষ প্রতিনিধি লাখদার ব্রাহিমি. সিরিয়ার রাজধানীতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি তাড়াতাড়ি হিংসা বন্ধ করার প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করেন. ব্রাহিমি জোর দিয়ে বলেন যে, অগ্নি সংবরণের ব্যবস্থা পালনের প্রতি একান্ত মনোযোগ দেওয়া প্রয়োজন. পর্যবেক্ষণের কর্তব্য গ্রহণ করতে পারে শান্তির মিশন, বলেন তিনি. দেশে আন্তর্জাতিক বাহিনী মোতায়েন সম্বন্ধে চূড়ান্ত সমঝোতায় এখনও পৌঁছোনো যায় নি. ব্রাহিমি জোর দিয়ে বলেন যে, তবে পক্ষগুলি একমত যে, এমন বাহিনী তাদের প্রয়োজন. অনুমান করা হচ্ছে যে, এ অভিযানে থাকবে পর্যবেক্ষণ, সামরিক ও নাগরিক উপাদান এবং তাতে মোট লোক সংখ্যা থাকবে ৪-১০ হাজার জন. ব্রাহিমি দামাস্কাসকে আশ্বাস দিয়েছেন যে, সিরিয়ায় যেকোনো শান্তি মিশনের অধিকার এবং থাকার মেয়াদ সুনির্দিষ্ট করা হবে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদে. কূটনীতিজ্ঞ বলেন, “পাকা গ্যারান্টি দেওয়া হবে যে এটা দখল নয়”. তাঁর কথায়, শান্তি অভিযানে অংশগ্রহণকারী দেশগুলির তালিকা প্রণয়ন করা হবে সিরিয়ার সরকার এবং বিরোধীপক্ষের সাথে ঘনিষ্ঠ সঙ্গতি সাধনে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের বিশেষ প্রতিনিধি জোর দিয়ে বলেন যে, হিংসা বন্ধ হওয়ার পরে অন্তর্বর্তী সরকার গঠন করা প্রয়োজন. তা শাসন ক্ষমতায় থাকবে পার্লামেন্ট অথবা রাষ্ট্রপতির নির্বাচন পর্যন্ত. শনিবার ব্রাহিমি মস্কোয় আসবেন, যেখানে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরোভের সাথে সর্ব সিরিয়া সংলাপ শুরু করার প্রচেষ্টা সম্পর্কে আলোচনা করবেন. ব্রাহিমির কথায়, তাঁর পরিকল্পনায় আছে নিকট ভবিষ্যতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার সাথে ত্রিপাক্ষিক সাক্ষাত্ আয়োজন করা.