গুলি ছোঁড়ার অস্ত্র নির্মাণে রাশিয়ার কিম্বদন্তী মানুষ মিখাইল কালাশনিকভের স্বাস্থ্যের গুরুতর অবনতির খবর বাড়িয়ে বলা ব্যাপার. এই গুলিকে অসত্য বলে নাম দিয়েছেন তাঁর ব্যক্তিগত জীবন কাহিনীর লেখক আলেকজান্ডার উঝানভ. তাঁর কথামতো তিনি কালাশনিকভের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন ও এই বিখ্যাত নির্মাতার কন্ঠস্বর সব সময়ের মতই ছিল প্রফুল্ল. বিশ্বের সবচেয়ে বিখ্যাত স্বয়ংক্রিয় রাইফেল একে- ৪৭ এর পিতৃ পুরুষের স্বাস্থ্য নিয়ে নানা রকমের পরস্পর বিরোধী খবর শোনা যাচ্ছিল প্রায় এক সপ্তাহ আগে থেকেই.

জানানো হয়েছিল যে, কালাশনিকভ প্রথমে প্রাণ সংরক্ষণ বিভাগে ভর্তি হয়েছিলেন ও তার পরে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে. উঝানভ বলেছেন যে, ওনার এখন স্রেফ নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষাই করা হচ্ছিল. ৯৩ বছর বয়সী মানুষের অবশ্যই স্বাস্থ্যের বিষয়ে সমস্যা না থেকে পারে না. কিন্তু তিনি বেশ ভালই বোধ করছেন ও আগের মতই সামাজিক কাজকর্মে অংশ নিচ্ছেন.

কিছুদিন আগেই রুশ সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কালাশনিকভের নামে একটি কোম্পানী খেলার, এই কথা মনে করিয়ে দিয়ে “জাতীয় প্রতিরক্ষা” নামের জার্নালের প্রধান সম্পাদক ইগর করোতচেঙ্কো বলেছেন:

“এই নামের সঙ্গে জুড়ে রয়েছে কালাশনিকভের নামাঙ্কিত রুশ স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র. নানা রকমের ধরণ হয়েছে এই অস্ত্রের. প্রত্যেকটিই আধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র শিল্পের এক অসাধারণ নিদর্শন. প্রথমে সোভিয়েত ও পরে রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর অস্ত্র নির্মাণ সংস্কৃতি স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নির্মাণের উপরেই ভিত্তি করে তৈরী হয়েছে, যা মিখাইল কালাশনিকভ তৈরী করেছিলেন”.

এরই মধ্যে রাশিয়াতে ডিসেম্বর মাসে কালাশনিকভের নামে তৈরী নতুন স্বয়ংক্রিয় আগ্নেয়াস্ত্র একে – ১২ পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে. আগামী বছরের মাঝামাঝি সময়ে নতুন ধরনের অস্ত্রের সরকারি পরীক্ষা হওয়ার কথা রয়েছে. এর পরে তা রাশিয়ার নানা ধরনের বাহিনীর কাজে লাগানো হতে পারে.

একে – ৪৭ এখন ষাট বছরেরও বেশী সময় ধরে বিশ্বে রয়েছে, আর রাশিয়াতে এখন নতুন আগ্নেয়াস্ত্র সত্যই খুব প্রয়োজন, এই রকম কথা উল্লেখ করে ভূ-রাজনৈতিক বিজ্ঞান একাডেমীর সহ সভাপতি কনস্তানতিন সিভকভ বলেছেন:

“আমি মনে করি যে, একে- ১২ আন্তর্জাতিক বাজারে একে – ৪৭ এর যোগ্য প্রতিস্থাপক হতে পারে. একই ধরনের আগ্নেয়াস্ত্রের মধ্যে তা খুবই প্রতিযোগিতার উপযুক্ত করে তৈরী করা হয়েছে. আশা করব যে, তা একে – ৪৭ এর মতই সাফল্য অর্জন করতে পারবে. আগের অস্ত্রটি বিশ্বে উত্পাদিত ও প্রসারিত ধরনের আগ্নেয়াস্ত্রের মধ্যে সর্ব্বোচ্চ রেকর্ডের অন্যতম অধিকারী”.

কালাশনিকভের নামে তৈরী করা অস্ত্র রাশিয়া ছাড়া – চিনে, পূর্ব ইউরোপে, লাতিন আমেরিকাতে আগের মতই এখনও তৈরী করা হচ্ছে. সব মিলিয়ে নানা ধরনের কালাশনিকভ তৈরী করা হয়েছে প্রায় সাত কোটির বেশী. পৃথিবীর প্রায় পঞ্চাশটি দেশের সামরিক বাহিনী গুলি এই আগ্নেয়াস্ত্রের নানা রকমের সংস্করণ দিয়ে সজ্জিত. বিশ্বের প্রায় সমস্ত দেশের বিশেষ বাহিনীর অস্ত্রাগারে এই ধরনের অস্ত্র রয়েছে.