নতুন বিশ্বে চীনের নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক অর্থনীতি বিশাল পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে. ইউরোপের বৃহত্তম ব্যাঙ্ক HSBC-র বিশ্লেষকদের দেওয়া পূর্বাভাস অনুযায়ী, এর বড়সড় প্রভাব লক্ষ্য করা যাবে ২০১৩ সালের প্রথম তিনমাসে. ব্যাঙ্কটির ও আরও কয়েকজন বিশেষজ্ঞের মতে, চীন সামনের বছরে হবে একমাত্র বড় অর্থনীতির দেশ, যে অর্থনৈতিক বিকাশের সদর্থক ফলাফল প্রদর্শন করবে. বিশেষজ্ঞেরা ২০১২ ও ২০১৩ সালে চীনে মাথাপিছু উত্পাদন বৃদ্ধির হার যথাক্রমে ৭,৮% ও ৮,৬% হবে বলে মূল্যায়ণ করেছেন. ২০১২ সালে চীন অন্যান্য দেশের মতোই বিশ্ব অর্থনীতির ওঠানামার স্রোতের মুখে পড়েছে. ইউরোপীয় সংঘ সহ গোটা ইউরোপের অর্থনীতির দুর্বলতার কারনে চীনের রপ্তানী হ্রাস পেয়েছে. তাসত্বেও ভারত ও ব্রাজিল, যারা আভ্যন্তরীন বিবাদে হয়রান, তাদের বিপরীতে চীন বিদেশী দুর্ভোগ অতিক্রম করতে পেরেছে, পরিকাঠামোর উন্নয়নের খাতে অর্থব্যয় বাড়াতে পারার সুবাদে. HSBC উল্লেখ করেছে, যে ২০১২ সালের শেষদিকে চীন ‘ছোটখাটো পুণরুত্থান’ ঘটিয়েছে. আগের তুলনায় চীন বর্তমানে অনেক বেশি বলিষ্ঠ অর্থনীতির মালিক. ব্যাঙ্কটির পূর্বাভাস অনুযায়ী, ২০১৪ সালে বিশ্ব অর্থনীতিতে চীনের অবদান হবে ইতিহাসে সর্ববৃহত্.