রাশিয়ার “রাশিয়া টু-ডে” টেলি-চ্যানেলকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরোভ বলেছেন যে, তিনি বিশ্বাস করেন না যে, সিরিয়া রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করবে. মন্ত্রী আরও উল্লেখ করেন যে, যেমন রাশিয়ায়, তেমনই পাশ্চাত্যে মনে করা হচ্ছে যে, সবচেয়ে বড় বিপদ হতে পারে রাসায়নিক অস্ত্র সশস্ত্র বিরোধীপক্ষের হাতে পড়ার সম্ভাবনা. লাভরোভ বলেন যে, তিনি বৈপরীত্য দেখতে পাচ্ছেন এ ব্যাপারে যে, পশ্চিমী শরিকরা এই বিদ্রোহীদের আহ্বান জানাচ্ছে “সরকারের সাথে আলাপ-আলোচনা না চালাতে, তবে সংগ্রাম চালিয়ে যেতে” আর “তাদের সমর্থন করছে অস্ত্র, অর্থ যুগিয়ে এবং তাছাড়া তাদের নৈতিক ও রাজনৈতিক সমর্থন দিচ্ছে”. লাভরোভ আরও বলেন যে, রাশিয়া সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাশার আসদ-কে নিজের পদ ত্যাগ করার ব্যাপারে বোঝাতে চায় না. এটা তারই করুক, যারা মস্কোকে এ প্রস্তাব দিচ্ছে. সেই সঙ্গে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মনে করিয়ে দেন যে, আসদ একাধিকবার বলেছেন যে, নিজের পদ ত্যাগ করবেন না, তিনি সিরিয়ায় জন্মগ্রহণ করেছেন এবং সেখানেই মৃত্যু গ্রহণ করবেন. তাছাড়া, রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সিরিয়ায় বিদেশী সামরিক হস্তক্ষেপের সম্ভাবনা বাদ দিচ্ছে না. তিনি তাছাড়া সিরিয়ার বিরোধীপক্ষের প্রতিনিধিদের দ্বারা হস্টেজ আটক এবং সন্ত্রাস চালানো-কে অগ্রহণীয় বলে অভিহিত করেন. লাভরোভ জোর দিয়ে বলেন যে, দেশের পরিস্থিতির অজুহাত দিয়ে পাশ্চাত্যের দ্বারা সিরিয়ায় সন্ত্রাসের নিন্দে করতে অস্বীকার করা তাঁর হতাশা জাগায়. তাঁর কথায়, এ ধরণের যুক্তি বিপজ্জনক পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারে শুধু নিকট প্রাচ্যেই নয়, পৃথিবীর অন্যান্য জায়গাতেও, যদি পশ্চিমী শরিকরা “সন্ত্রাসবাদীদের খারাপ অথবা গ্রহণযোগ্য বলে বিভাজন করতে শুরু করে”.