বিদেশে নির্বাসিত সিরিয়ার বিরোধীপক্ষের অন্যতম বহুলপরিচিত কর্মী হাইসাম আল-মালেহ রাশিয়া ও ইরানের নাগরিকদের জঙ্গীদের জন্য ‘ন্যায্য টার্গেট’ বলে মন্তব্য করেছেন. ‘আল-জাজিরা’ দূরদর্শন চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে তিনি এই মত ব্যক্ত করেছেন, যে জেনেভা কনভেন্সনে গৃহীত সিদ্ধান্ত এমন অধিকার দেয়, যেখানে বলা আছে, যে সিরিয়ায় যুদ্ধরত কোনো পক্ষকে কেউ সাহায্য করলে তাকে শাস্তি দেওয়া যাবে. তবে যে সব দেশ আসাদের শাসনব্যবস্থাকে সমর্থন জানায় না, সেইসব দেশের নাগরিকদের অপহরণ না করার আর্জি তিনি জানিয়েছেন জঙ্গীদের কাছে. তিনি অবশ্য মুখ ফস্কে বলে ফেলেছেন, যে সিরিয়ায় জঙ্গীরা বিদেশে বসবাসকারী বিরোধীদের পরামর্শ না নিয়ে নিজেরাই তাদের কার্যকলাপ সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেয়.

‘আল-জাজিরা’ উল্লেখ করছে, যে ৭৮-বছর বয়সী আল-মালেহ নিজে বহুকাল সিরিয়ায় কারাবন্দী ছিলেন, এমনকি অনশন পর্যন্ত করেছিলেন. ২০১১ সালে রাষ্ট্রপতি স্বাক্ষরিত রাজবন্দীদের মুক্তিদানের আওতায় তার শাস্তি মকুব করা হয়েছিল ও তারপরে তিনি সিরিয়া পরিত্যাগ করেন. বর্তমানে আল-মালেহ আছেন কায়রোয়.