দুজন রুশ ও এক ইতালির নাগরিককে সিরিয়াতে যারা অপহরণ করেছে তারা এখন এদের ছেড়ে দেওয়ার জন্য মুক্তিপণ চাইছে. সেই কৃত্রিম উপগ্রহ মারফত যোগাযোগের কোম্পানী, যাতে এই ব্যক্তিরা কাজ করছিলেন, তাদের কাছে ফোনে তারা শর্ত জানিয়েছে. মস্কো এই অপহৃত ব্যক্তিদের সমস্যা নিয়ে কাজ করছে, ঘোষণা করেছেন রুশ প্রজাতন্ত্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রধান সের্গেই লাভরভ. প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ যেমন সিরিয়াতে তেমনই অন্যান্য দেশেও নেওয়া হচ্ছে, যারা পরিস্থিতির উপরে প্রভাব বিস্তার করতে সক্ষম, এই কথা উল্লেখ করেছেন মন্ত্রী.

এর মধ্যেই অপহৃতদের নাম প্রকাশ করা হয়েছে. এঁরা রুশ গাভ্রিলভ, আবদে- সাত্তার হাস্সুন, এই ব্যক্তির আবার রুশ ও সিরিয়া দুই দেশেরই নাগরিকত্ব রয়েছে ও ইতালির মারিও বেল্লুওমো. রেডিও রাশিয়াকে দামাস্কাসের রুশ দূতাবাসের তথ্য সচিব সের্গেই মারকভ জানিয়েছেন যে, এই তিন জনই সিরিয়ার একটি বেসরকারি কোম্পানীর কর্মী. তিনি বলেছেন:

“গতকাল তার্তুস থেকে হোমস যাওয়ার সড়কে এই অপহরণ সংঘটিত হয়েছে. এই ঘটনার অন্যান্য বিশদ বিবরণ এখন খুঁটিয়ে দেখা হচ্ছে. দূতাবাস সক্রিয়ভাবে স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে যৌথভাবে রাশিয়ার নাগরিকদের অবস্থান নির্ণয়ের চেষ্টা করছে”.

রাশিয়ার মানবাধিকার রক্ষা সভা খুবই উদ্বেগের সঙ্গে সিরিয়াতে রাশিয়ার নাগরিকদের সঙ্গে কি হচ্ছে, তা লক্ষ্য করছে. এই বিষয়ে রেডিও রাশিয়াকে ঘোষণা করেছেন রুশ প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপতির অধীনস্থ মানবাধিকার রক্ষা সভার প্রধান মিখাইল ফিদোতভ, তিনি বলেছেন:

“আমরা মনে করি যে, এটা একেবারেই হতে দেওয়া যায় না, যখন রাশিয়ার নাগরিকদের আটকে রাখা হয়, অপহরণ করা হয়, তাদের জন্য মুক্তিপণ চাওয়া হয়. এটা শুধু আন্তর্জাতিক মানবাধিকার লঙ্ঘণই করে না, বরং মূল্যবোধ সংক্রান্ত সবচেয়ে মৌলিক নিয়ম গুলিকেও ভঙ্গ করে. আমরা সকলের কাছেই আবেদন করছি, যারা এই অপহরণকারীদের উপরে কোন প্রভাব ফেলতে পারে, যাতে তারা অবিলম্বে এই ধরনের নোংরা কাজ বন্ধ করে. আমরা এখনই এই বন্দীদের মুক্তি চাই. এটা আনহার কচনেভার জন্যও আমরা করছি. তিনি যদিও রুশ নাগরিক নন, তবুও তিনি রুশী সংবাদ প্রকাশনার কোম্পানীর হয়ে কাজের জন্যই সিরিয়া গিয়েছিলেন. তিনি আমাদের অন্য যে কোনও রুশ সাংবাদিকের মতই একজন সহকর্মী”.

আনহার কোচনেভা সিরিয়ার বিরোধী সশস্ত্র জঙ্গীদের হাতে বন্দী রয়েছেন, তারা আবার সেই সিরিয়ার স্বাধীনতা বাহিনীর লোক. ফেসবুকে ৮ই নভেম্বর তিনি যারা তাঁকে অপহরণ করেছে, তাদের দাবী মেনে নিতে রাশিয়া ও নিজের দেশ ইউক্রেনের সরকারকে আহ্বান করেছেন. সেটা কত টাকা তিনি নিজে জানান নি. তারই মধ্যে সংবাদ মাধ্যমে খবর বেরিয়েছে যে, জঙ্গীরা তাঁর মুক্তির জন্য পাঁচ কোটি ডলার মুক্তিপণ দাবী করেছে.