সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রাক্তন-রাষ্ট্রপতি, নোবেল শান্তি পুরস্কার প্রাপক মিখাইল গর্বাচোভ এই বিষয়ে উদ্বিগ্ন, যে বিশ্বে পারমানবিক অস্ত্রের ভান্ডার আগেকার মতোই বিশাল. ‘মস্কো টাইমস’ সংবাদপত্রকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে তিনি একবিংশ শতাব্দীতে নতুন করে সমরসজ্জার প্রতিযোগিতার ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়েছেন. তিনি উল্লেখ করেছেন, যে নতুন নতুন দেশ পারমানবিক অস্ত্রের অধিকারী হওয়ার পরে পারমানবিক অস্ত্রশস্ত্রের হাতচালান হওয়ার সম্ভাবনা থেকেই যাচ্ছে.

- “আমাদের চোখের সামনে শুরু হচ্ছে অস্ত্রসজ্জার নতুন প্রতিযোগিতা, আবার মহাকাশের সামরিকীকরনের বিপদ ঘনিয়ে আসছে”.

গর্বাচোভের কথায়, জেনেভায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও সোভিয়েত ইউনিয়ন সামরিক প্রাধান্য বিস্তার না করার যে অঙ্গীকার করেছিল, সে সব বিস্মৃতির অতলে তলিয়ে যাচ্ছে.

বিশ্বে সামরিক খাতে যে পরিমান অর্থ ব্যয় করা হচ্ছে তার প্রায় অর্দ্ধেকটাই ব্যয় করছে বৃহত্শক্তি আমেরিকা. যদি এরকম চলতেই থাকে, তবে পারমানবিক অস্ত্রবিহীন বিশ্ব গড়ার কথা ভুলে যাওয়াই ভালো. গর্বাচোভ বলছেন, যে এই বন্দুকটা কোনো একদিন গুলি ছুঁড়বেই. তিনি আরও যোগ করেছেন, যে পারমানবিক অস্ত্রশস্ত্র ধ্বংস করা ও পারমানবিক যুদ্ধ থেকে বিরত থাকার দায়িত্ব রয়েছে ২টি দেশের কাঁধেই – মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ও রাশিয়ার.