তেসরা ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস. রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারন সভা বিশ বছর আগে এই দিনটিকে আলাদা করে চিহ্নিত করেছিল. সারা বিশ্বেই প্রতিবন্ধী দিবস পালিত হয়ে থাকে. রাশিয়াতে এই দিবস উপলক্ষে সহজ পরিবেশ নামের আধুনিকীকরণ করা পরিকল্পনা উত্সর্গ করা হয়েছে. তার প্রধান লক্ষ্য হল শহরের রাস্তা গুলিকে প্রতিবন্ধীদের জন্য বিশেষ করে অনুকূল করা.

মহানগরের রাস্তার কোলাহলে, হুইল চেয়ারে বসা প্রতিবন্ধীর পক্ষে অনেক সময়েই চলাফেরা এমনকি প্যারাঅলিম্পিকের কোন প্রতিযোগিতার চেয়েও কঠিন হয় পড়ে. সমস্ত রাশিয়ার রাস্তা গুলিকেই শারীরিক ভাবে বাধার সম্মুখীণ হওয়া লোকদের জন্য সহজ করে দেওয়াই – এই সহজ পরিবেশ নামের পরিকল্পনার উদ্দেশ্য. রাশিয়াতে তা করা হচ্ছে সরকারের উদ্যোগেই. এর প্রধান লক্ষ্য সামাজিক পরিবহনের যান গুলিকে প্রতিবন্ধীদের পক্ষে ওঠা নামার জন্য সহজ করা, দোকান-পাট, ঘর বাড়ী, রাস্তা সর্বত্রই সহজ ভাবে গড়িয়ে ওঠার জন্য ঢালু জায়গা তৈরী করে দেওয়া. এই সব কাজের জন্য সব মিলিয়ে যত অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে, তার আর্থিক পরিমান প্রায় দেড়শো কোটি ডলার. এই প্রসঙ্গে রাশিয়ার প্যারা অলিম্পিক কমিটির সাধারন সম্পাদক মিখাইল তেরেন্তিয়েভ বলেছেন

দেখাই যাচ্ছে যে, বিগত বছর গুলিতে এই বিষয়টি মনোযোগের তালিকার প্রথমেই রয়েছে, আর তা শুধু মস্কোতেই নয়, অন্যান্য শহরেও. বহু আঞ্চলিক পরিকল্পনা তৈরী করা হচ্ছে. আমি নিজের অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি যে, অনেক প্রতিবন্ধীই মনে করেন যে, বছর দশেক আগের সময়ের চেয়ে এখন অবশ্যই বাঁচা অনেক সহজ হয়েছে.

প্রধান সমস্যা গুলির মধ্যে – প্রতিবন্ধীদের কাজের ব্যবস্থা করা. প্রত্যেক বছরে রাশিয়াতে তাদের জন্য প্রায় ১৪ হাজার নতুন কাজের জায়গা তৈরী করা হয়ে থাকে. এখনই প্রতিবন্ধীদের জন্য ইন্টারনেটে বিশেষ এমপ্লয়মেন্ট এক্সচেঞ্জে নাম লিখিয়ে কাজ খোঁজা যেতে পারে, অথবা দূর থেকে করা যায় এমন কাজও পাওয়া যেতে পারে. এর জন্যও চাকরির ক্ষেত্রে কোটা ব্যবস্থা রয়েছে. প্রশিক্ষণের জন্য নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার করা হচ্ছে. একজন শিশু প্রতিবন্ধী অনায়াসেই অন-লাইন পড়াশোনা করতে পারে. কিন্তু সব থেকে ভাল হয়, যদি সে তার সমবয়সীদের সাথেই পড়াশোনা করতে পারে. এই নীতিই দেশে এখন সক্রিয় ভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে, এই কথা উল্লেখ করে সারা রাশিয়ার প্রতিবন্ধী সমাজের সভাপতি ওলেগ রীসেভ বলেছেন

অনেকটাই নির্ভর করে সমাজে একজন মানুষ কি ভাবে ব্যবহার করছেন, তার ওপরে. তার শিক্ষা, কি ধরনের পাওয়া সম্ভব হবে, তার ওপরেও অনেক নির্ভর করে তারই ভবিষ্যতের জীবন ও সমাজে অবস্থান. সেই ব্যক্তি কতটা পেরে উঠবেন একজন পরনির্ভরশীল লোকের জায়গা থেকে বেরিয়ে একজন সম্পূর্ণ নাগরিক হয়ে উঠতে.

সরকারি তথ্য অনুযায়ী রাশিয়াতে এক কোটি ৩০ লক্ষ প্রতিবন্ধী রয়েছেন. আর সরকার এখনও অনেক কিছু করতে বাধ্য এই মানুষদের জন্য. রাশিয়া রাষ্ট্রসঙ্ঘের অধিবেশনের প্রতিবন্ধীদের অধিকার সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে ২০০৮ সালেই, আর তা দেশের লোকসভা এই বছরের বসন্ত কালেই শুধু দেশে আইন সম্মত করেছে. এই মুহূর্তে, একটি সেরা শহর – যা প্রতিবন্ধীদের দৃষ্টিকোণ থেকে সহজ ও আরামদায়ক বলে রাশিয়াতে রয়েছে – তা হল সোচী শহর. আজ থেকে দেড় বছর পরেই সেখানে হতে চলেছে শীত কালের অলিম্পিক ও প্যারাঅলিম্পিক গেমস.