রাশিয়ার ডাক্তারেরা এবারে বিশ্বের হৃদয় সংক্রান্ত শল্যবিদ্যায় এক যুগান্তকারী বিপ্লবের সূচনা করতে চলেছেন. হৃদ বৈকল্য নিয়ে বেঁচে থাকা বহু সহস্র মানুষকে এবারে স্বাভাবিক ভাবেই বেঁচে থাকার সুযোগ দেওয়া যাবে. আলেকজান্ডার নিকোলায়েভিচ বাকুলেভ নামক প্রখ্যাত সোভিয়েত চিকিত্সকের নামাঙ্কিত হৃতপিণ্ড ও শিরা- ধমনীতে শল্যবিদ্যা সংক্রান্ত বৈজ্ঞানিক কেন্দ্রে এবারে প্রথমবার হৃদয়ে কৃত্রিম ভাল্ভ আবিষ্কার করে তা রোগীর হৃতপিণ্ডে স্বাভাবিক ভাবে জীবন্ত ভাল্ভের মতই কাজ করানো সম্ভব হয়েছে, যা অপারেশনের পরে কোন রকম জটিলতার সৃষ্টি করে না.

রোগিনী নিনা গলোভিদকে এখানের ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছিল জীবন মৃত্যুর মাঝে থাকা অবস্থায়. তাঁর খুবই কঠিন রকমের হৃতপিণ্ডের অসুখ ছিল, এই ধরনের রোগ থেকে বিশ্বে প্রতি বছরে বহু লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয়ে থাকে. তাঁরা মারা যান হৃদ যন্ত্রের বৈকল্যের কারণে অথবা হার্ট অ্যাটাকে, যা প্রায়ই এই ধরনের হৃদ যন্ত্রের গোলযোগের ফলে সৃষ্টি হয়ে থাকে. যাতে রোগিনীকে বাঁচানো সম্ভব হয়, তাই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল, তাঁর হৃদয়ে নতুন করে ভাল্ভ লাগানোর. তিন ঘন্টা সময়ের এই অপারেশনের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন এই কেন্দ্রের ডিরেক্টর এবং বিশ্বের এক অন্যতম শ্রেষ্ঠ হার্ট সার্জন লিও বোকেরিয়া. তিনি এই প্রসঙ্গে বলেছেন:

“অসুস্থ রোগিনীর বয়স ৬৩ বছর, তিনি ভর্তি হয়েছিলেন খুবই কঠিন ধমনী সংক্রান্ত অসুখ অ্যাওর্টা স্টেনোজ নিয়ে. অর্তাত্ রোগিনী শুরু থেকেই খুবই খারাপ অবস্থায় ছিলেন. এখন তাঁর সব কিছুই ভাল হয়েছে. ইতিমধ্যেই কৃত্রিম ভাবে তাঁকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য যাবতীয় ব্যবস্থা খুলে নেওয়া হয়েছে, তিনি নিজেই এখন শ্বাস প্রশ্বাস নিতে পারছেন. তাঁকে ইনটেনসিভ কেয়ার থেকে সাধারন শয্যায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে. তাঁর ভবিষ্যত সম্ভাবনা এখন ভাল, কারণ কোনো রকমের ধমনী সংক্রান্ত বাধা তাঁর আর নেই. এর পরে রোগিনীকে সব কিছুতেই নিজেকে আর সংযত করে রাখতে হবে না”.

হৃদয়ের সমস্ত প্রবাহ সুস্থ রাখার মতো ভাল্ভ তৈরী- এটা রুশ নো- হাউ. তা হার্টের অ্যাওর্টা দিয়ে রক্তের প্রবাহকে স্বাভাবিক রাখে, তা খুব কমই শরীরের থেকে কোন রকমের প্রতিরোধের সম্মুখীণ হয়ে থাকে, যে রকম এর আগের গুলো হয়ে থাকত. তার উপরে এটা আবার দীর্ঘস্থায়ীও হয়েছে. এর আগের যে সমস্ত ভাল্ভ তৈরী করা হত জীব জন্তুর টিস্যু থেকে, তা প্রত্যেক সাত বছর পরেই পাল্টাতে হত. নতুন করে তৈরী এই রুশ ভাল্ভ তৈরী করা হয়েছে খুবই হাল্কা অথচ শক্ত জিনিষ দিয়ে আর তা ১০ বছরেরও বেশী সময় কাজ করতে পারবে.

কিন্তু এখানে মূল কথা হল যে, আজকের দিনে এটা সবচেয়ে নিরাপদ কৃত্রিম ভাল্ভ. এটা এমনকি একেবারে শিশুদেরও দেওয়া যেতে পারে. তাদের জন্যই এই ভাল্ভ প্রথমে তৈরী করা হয়েছিল. এর আগের সব যন্ত্রই প্রায়ই নানা রকমের উপসর্গের সৃষ্টি করত. যেমন, রক্ত জমাট বাধায় সমস্যা হত, রক্তে থ্রম্বোজ তৈরী হত, আর এটা জীবনের জন্যই বিপজ্জনক হয়ে যেত. রাশিয়ার আবিষ্কার – এটা হার্ট ও করোনারী রোগ সংক্রান্ত অপারেশনের ক্ষেত্রে একটা যুগান্তকারী আবিষ্কার, এই কথা বিশ্বাস করেন নোভোসিবিরস্ক শহরের চাইল্ড কার্ডিও সার্জারি সেন্টারের প্রধান ইউরি গরবাতীখ. তিনি বলেছেন:

“এই জিনিষের ধারণা খুবই ভাল ধরনের. নতুন ভাল্ভের রক্তের প্রবাহে কাজ করার ক্ষেত্রে চরিত্র একেবারেই হার্টের ভাল্ভের মতো. আমি বিদেশে তৈরী এই ধরনের ভাল্ভের কোন তুলনা করার মতো কিছু আছে বলে জানি না. বাজারে তা নেই. বর্তমানের বাজারে যে ধরনের সব ভাল্ভ রয়েছে, তার থেকে খুবই সম্ভব যে এই নতুন ভাল্ভ অনেক ভাল ফল দেবে”.

এবারে হার্টের ডেফিসিয়েন্সি সমেত যে সব লোক রোগে ভুগছেন, তাঁদের একটা আশা জাগানোর উপযুক্ত কারণ হয়েছে. প্রত্যেক বছরে শুধু রাশিয়াতেই বহু সহস্র হার্টের রোগী এই ধরনের অপারেশনের প্রয়োজন বোধ করেন. তাঁদের মধ্যে বাচ্চাদের সংখ্যাও কম নয়, যাদের ক্ষেত্রে এই ভাল্ভের রোগের পরিনাম বড়দের থেকে অনেক বেশী কঠিন হয়ে থাকে.