এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় আন্তর্রাষ্ট্রীয় সম্পর্ক গঠনের ক্ষেত্রে একটি মূল বিষয় হল – পূর্ব এশিয়ার শীর্ষ সম্মেলন. এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকা বর্তমানে “পরিণত” হয়েছে নতুন এক নিরাপত্তার কাঠামোর জন্য – জোট বিহীণ ও অখণ্ডিত. এই বিষয়ে ঘোষণা করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রধান সের্গেই লাভরভ, তিনি বক্তৃতা দিয়েছেন নমপেন শহরে সপ্তম পূর্ব এশিয়া শীর্ষ সম্মেলনে.

এলাকা সংক্রান্ত বিরোধ স্পষ্ট করেই নজরে এনেছে আন্তর্জাতিক আইন সংক্রান্ত ব্যবস্থার অভাব, যা এই সমস্যাকে সমাধান করতে পারে, আর এই এলাকায় যৌথ নিরাপত্তা সংক্রান্তও কোন ব্যবস্থা নেই. পূর্ব এশিয়া শুধু বিশ্ব অর্থনীতির জন্যই এক গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার নয়, বরং এমন একটি এলাকা যেখানে আরও বেশী করেই অস্ত্র প্রতিযোগিতা চালু হয়েছে. এখানে সহযোগিতার জন্য যে সমস্ত ব্যবস্থা রয়েছে, যেমন আসিয়ান অথবা এশিয়ার আঞ্চলিক ফোরাম, তা বিরোধের মীমাংসা বা পারস্পরিক ভরসা ও বিশ্বাস যোগ্যতা বৃদ্ধির জন্য কোন উল্লেখ যোগ্য অবদান আপাততঃ করতে পারে নি. দক্ষিণ চিন সমুদ্রের অধিকার প্রসঙ্গ নিয়ে ঐক্যের অভাব সেই জায়গাতেই নিয়ে এসেছে, যে প্রতি বছরের আসিয়ান ও এই জোটে আলোচনার সহকর্মী দেশ গুলির সাক্ষাত্কারে, যা আবারও এই বারে আগষ্ট মাসে সেই নমপেন শহরেই হয়েছিল, তা প্রথম আসিয়ান সংস্থার ইতিহাসে শেষ হয়েছে কোন যৌথ ভাবে গৃহীত কম্যুনিকে ছাড়াই.

রাশিয়া আজ প্রথমবার মনোযোগ দিচ্ছে না সেই বিষয়ে যে, পূর্ব এশিয়া সহযোগিতা সংস্থার কাঠামোর মধ্যে স্ট্র্যাটেজিক আলোচনা করা দরকার নিরাপত্তার কাঠামো ও এই এলাকায় সহযোগিতা নিয়ে. গত বছরের শীর্ষ সম্মেলনে, যা ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপে অনুষ্ঠিত হয়েছিল, তাতে রাশিয়া নিজের পূর্ব এশিয়াতে পরিস্থিতি আরও স্থিতিশীল ও পূর্ব অনুমান যোগ্য কি করে করা যেতে পারে, তা নিয়ে ধারণাকে ব্যাখ্যা করেছিল. এখন বালি শীর্ষ সম্মেলন হয়ে যাওয়ার এক বছর পরে মস্কো আগের মতই মনে করে যে, পূর্ব এশিয়া সহযোগিতা সংস্থা এই নীতি গুলিকেই পূর্ব এশিয়ার নিরাপত্তা সংক্রান্ত সম্পূর্ণ ধারণায় পরিণত করার ক্ষমতা রাখে. সময় হয়েছে এবারে কথা থেকে কাজে পরিণত করার – বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন নিজের বক্তৃতায় সের্গেই লাভরভ.

নমপেন শহরে মস্কো আবারও মনোযোগ আকর্ষণ করেছে নিজেদের আঞ্চলিক নিরাপত্তা সংক্রান্ত প্রস্তাব দিয়ে, - এই কথা “রেডিও রাশিয়াকে” দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে রুশ বিজ্ঞান একাডেমীর সুদূর প্রাচ্য ইনস্টিটিউটের ডেপুটি ডিরেক্টর সের্গেই লুজিয়ানিন. তিনি বলেছেন:

“সপ্তম পূর্ব এশিয়া শীর্ষ সম্মেলন শেষ হওয়াতে বিশেষ করে আঞ্চলিক নিরাপত্তার সমস্যার প্রভাবের কথা উল্লিখিত হয়েছে. আমার দৃষ্টিকোণ থেকে রাশিয়ার মন্ত্রী সের্গেই লাভরভ খুবই ঠিক নির্দেশ করেছেন যে, এই সম্পূর্ণ এলাকাতেই কোন সামগ্রিক নিরাপত্তা সংক্রান্ত চুক্তি নেই. সম্ভবতঃ, এই পূর্ব এশিয়া সহযোগিতা সংস্থার কাঠামোতেই তৈরী হবে আঞ্চলিক ও স্বচ্ছ নিরাপত্তার কাঠামো. এক সময়ে রাশিয়া ও চিন নিরাপত্তার ধারণা প্রস্তাব করেছিল, কিন্তু তা ত্রিশঙ্কু অবস্থাতেই থেকে গিয়েছে. রাশিয়ার লক্ষ্য ছিল এই পূর্ব এশিয়ার শীর্ষ সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী দেশ গুলিকে প্রমাণ করা যে, যেন এই প্রশ্নে আলোচনা শুরু হওয়া দরকার, তার ওপরে এই এলাকার পরিস্থিতি খুবই জটিল”.

রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রী সের্গেই লাভরভ নিজের সম্মেলনের বক্তৃতায় জানিয়েছেন যে, রাশিয়া ব্রুনেই ও চিনের সাথেই এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় নিরাপত্তা মজবুত করা নিয়ে কাঠামো সংক্রান্ত নীতি নির্ণয়ের পরামর্শ শুরু করেছে. মস্কো সেই ধারণা থেকেই এগিয়েছে যে, এই কাঠামো সংক্রান্ত নীতিতে সমস্ত এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশের উদ্বেগ ও স্বার্থই খেয়াল করা হবে ও সমস্ত সহকর্মীদের আমন্ত্রণ করেছে এই কাজের জন্য সক্রিয় ভাবে অংশ নিতে.