ইরানের ফাইটার বিমান পয়লা নভেম্বর পারস্য উপসাগরের অঞ্চলে মার্কিনী ড্রোন বিমানের দিকে গুলি বর্ষণ করেছিল. এ সম্বন্ধে বৃহস্পতিবার পেন্টাগনে এক ব্রিফিংয়ে বলেছেন মার্কিনী প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি জর্জ লিটল. পেন্টাগনের প্রতিনিধি যোগ করে বলেন যে, ইরানী বিমানগুলি দু বার ড্রোন বিমানের দিকে তাক করে এগিয়েছিল, কিন্তু ড্রোন বিমানে গুলি করে নি. লিটলের মতে, ইরানীরা ড্রোন বিমানটিকে ভূপাতিত করতে চায় নি. পেন্টাগনের প্রতিনিধির কথা উদ্ধৃত করে “ইন্টারফাক্স” জানিয়েছে, “ওরা গুলি চালিয়েছিল, যাতে ড্রোন বিমানটিকে ফিরে যেতে বাধ্য করা যায়”. পেন্টাগনের খবর অনুযায়ী, নিরস্ত্র ড্রোন বিমানটি সাধারণ পর্যবেক্ষণের উড়ান চালাচ্ছিল এবং ইরানের আকাশ-সীমা লঙ্ঘন করে নি. লিটল জানান যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কূটনৈতিক উপায়ে ইরানী কর্তৃপক্ষকে যথাযথ হুঁশিয়ারী দিয়েছে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইরানীদের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করে জানিয়েছে যে, তারা পারস্য উপসাগরের আন্তর্জাতিক জল-এলাকায় পর্যবেক্ষণ উড়ান চালিয়ে যাবে. লিটল বলেন, “এটা আমাদের বহুকাল ধরে ব্যবহৃত প্রয়োগ-নীতির সাথে এবং এ অঞ্চলে নিরাপত্তা বজায় রাখায় আমাদের দায়িত্বের সাথে সুসঙ্গত”. তিনি যোগ করে আরও বলেন যে, মার্কিনী পক্ষ ইরানীদের সতর্ক করে দিয়েছে যে, মার্কিনী পক্ষের হাতে “এ অঞ্চলে নিজেদের সামরিক সামগ্রী এবং বাহিনীর রক্ষার জন্য কূটনৈতিক থেকে সামরিক পর্যন্ত অতি ব্যাপক সুযোগ-সম্ভাবনা আছে, এবং প্রয়োজন হলে তারা তা ব্যবহার করবে”.