গ্রেট ব্রিটেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী উইলিয়াম হেগ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র সচিব হিলারি ক্লিন্টনের সঙ্গে একমত যে, সিরিয়ার বিরোধী পক্ষের গঠনের সংস্কার করা দরকার, খবর দিয়েছে বৃহস্পতিবারে ব্রিটেনের সংবাদপত্র “গার্ডিয়ান”.

ব্রিটেনের কাগজে তাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রধানের বক্তব্য ছাপা হয়েছে, “তাদের (সিরিয়ার বিরোধীদের) প্রয়োজন আরও বেশী করে সহমতে আসা যে কি করে দেশের ক্ষমতা তাদের কাছে দেওয়া হবে তা নিয়ে, তাদের সমস্ত শক্তি প্রয়োগ করা দরকার যাতে সিরিয়ার জনগনের কাছ থেকে সমর্থন পাওয়া যায়, তার মধ্যে দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়, খ্রীষ্টান, ব্যবসায়ী মহল রয়েছে. তাদের সকলেরই জানা দরকার যে, বাশার আসাদের সরকারের পতন হলে দেশে পরিবর্তন ভালোর দিকেই হবে. আমাদের বিশেষ প্রতিনিধি তাদের সঙ্গে প্রত্যেক দিনই কাজ করছে (সিরিয়ার বিরোধী পক্ষ), আর আমাদের আগামী বৈঠক নিয়ে যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে (কাতার রাষ্ট্রে) তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, তুরস্ক ও নেতৃস্থানীয় আরব দেশ গুলির সঙ্গে একসাথেই আলোচনা করে করা হয়েছে”.

এর আগে ব্রিটেনের সংবাদপত্র “গার্ডিয়ান” জানিয়েছিল যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র খুবই সক্রিয়ভাবে সিরিয়ার বিরোধী পক্ষের নতুন ঐক্যবদ্ধ সংগঠন তৈরীর ধারণা এগিয়ে দিয়েছে, যা “সিরিয়ার জাতীয় সভার” জায়গায় করা হবে ও নাম দেওয়া হবে “জাতীয় উদ্যোগ সভা”.

আশা করা হয়েছে যে, নতুন বিরোধী পক্ষ আগামী সপ্তাহেই কাতারের রাজধানী দোহা শহরে বৈঠকের সময়ে গঠন করা হবে.