এই খবর দেওয়া হয়েছে ক্রেমলিনের তথ্য দপ্তর থেকে. আলোচনার বিষয়বস্তু হবে “বৈজ্ঞানিক কাজকর্মের জন্য অনুদানের ব্যবস্থার দক্ষতা বৃদ্ধির প্রশ্ন ও সরকারি বরাত অনুযায়ী বাজেট বরাদ্দ থেকে গবেষণা ও আবিষ্কারের জন্য বিনিয়োগ বিষয়, উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে যোগান দেওয়া মূলধনের ব্যবহার আর তারই সঙ্গে বিজ্ঞান ক্ষেত্রে বিনিয়োগের জন্য নতুন ব্যবস্থা গুলির আইন সংক্রান্ত সহায়তার প্রশ্ন”.

0২০১২ সালের ২৮শে জুলাই রাষ্ট্রপতির নির্দেশ প্রকাশিত হওয়ার পরে এটি প্রথম অধিবেশন, যেখানে “রুশ প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপতির বিজ্ঞান, প্রযুক্তি ও শিক্ষা সংক্রান্ত সভাকে” নতুন করে “রাষ্ট্রপতির বিজ্ঞান ও শিক্ষা বিষয়ক সভায়” পরিণত করার পরে আয়োজন করা হয়েছে বলে তথ্য দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে.