রুশ-ভারত সামরিক-প্রযুক্তিগত সহযোগিতা, বিশেষ করে বিমান বাহিনীর ক্ষেত্রে, সক্রিয়ভাবে বিকশিত হচ্ছে, বলা হয়েছে ভারতের বিমানবাহিনীর ৮০ বছর পূর্তি উপলক্ষে “রসআবারোনএক্সপোর্ত” সংস্থার অভিনন্দনী বার্তায়. তাতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, সামরিক বিমানের ক্ষেত্রে রাশিয়া ও ভারতের সহযোগিতার ইতিহাস বহুকালের. ভারতের সশস্ত্র বাহিনীতে যুক্ত হয়েছে কয়েক হাজার সোভিয়েত ইউনিয়ন ও রাশিয়ায় তৈরি বিভিন্ন ধরণের উড্ডয়ন সরঞ্জাম. রাশিয়ার বিমান এবং হেলিকপ্টারই এখন ভারতের বিমানবাহিনীর বনিয়াদ, বলা হয়েছে বার্তায়. এ বার্তায় আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে, সফল সহযোগিতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হল ভারতে লাইসেন্সের ভিত্তিতে বহু লক্ষ্য সম্বলিত সু-৩০এম.কা.ই মার্কা ফাইটার বিমানের উত্পাদন, “যার সামরিক ফলপ্রসূতা প্রমাণিত হয়েছে পাশ্চাত্যের শ্রেষ্ঠ সব বিমানের অংশগ্রহণে আন্তর্জাতিক মহড়ার সময়”. নতুন অস্ত্রসজ্জা প্রস্তুতির ক্ষেত্রে সফল সহযোগিতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হল “ব্রামোস” মার্কা সুপারসোনিক রকেটের সৃষ্টি, উল্লেখ করেছে “রসআবারোনএক্সপোর্ত”. এ রকেট “সু-৩০এম.কা.ই” মার্কা বিমানে বসানো নিয়ে কাজ করছে দু দেশের বিশেষজ্ঞরা, বলা হয়েছে বার্তায়. “রসআবারোনএক্সপোর্ত” প্রতিষ্ঠানের মূল্যায়ন অনুযায়ী, “হেলিকপ্টার প্রযুক্তির ক্ষেত্রে সহযোগিতাও পরিপ্রেক্ষিতপূর্ণ”. বেশি সংখ্যায় “মি-১৭” মার্কা সামরিক-পরিবহণ হেলিকপ্টারের সরবরাহ ছাড়াও, রাশিয়া অংশগ্রহণ করছে দুটি টেন্ডারে – ১৫টি ভারী পরিবহণ হেলিকপ্টারের সরবরাহে এবং ১৯৭টি অনুসন্ধান ও পর্যবেক্ষণ হেলিকপ্টারের সরবরাহে.