২০১২ সালে চিকিত্সা বিজ্ঞান অথবা ফিজিওলজির ক্ষেত্রে নোবেল পুরস্কার পাচ্ছেন জাপানের বিজ্ঞানী সিনিয়া ইয়ামানাকা এবং বৃটিশ জীব বিজ্ঞানী জন গার্ডন. তাঁদের এ পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে কশেরুকা মজ্জা এবং জীবজন্তুর ক্লোনিংয়ের ক্ষেত্রে কাজের জন্য. রয়েল স্টকহম ইনস্টিটিউটের নোবেল কমিটি ঘোষণা করেছে যে, বিজ্ঞানীদের এই উচ্চ পুরস্কারে ভূষিত করা হচ্ছে শরীরের সাধারণ কোষ থেকে কশেরুকা মজ্জা উত্পাদন সংক্রান্ত আবিষ্কারের জন্য, এর পদ্ধতি তৈরি করেছেন জাপানের সিনিয়া ইয়ামানাকা. ইয়ামানাকা ও গার্ডন-কে পরপর কয়েক বছর ধরে এই সর্বোচ্চ আন্তর্জাতিক বৈজ্ঞানিক পুরস্কারের প্রার্থী হিসেবে অভিহিত করা হয়েছিল. এ বছরে নোবেল পুরস্কারের আর্থিক পরিমাণ ৮০ লক্ষ সুইডিশ ক্রোন বা প্রায় ১২ লক্ষ মার্কিনী ডলার.