রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক বান কি মুন সিরিয়া সঙ্ঘর্ষের উভয় পক্ষকে অস্ত্র সরবরাহ বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন. সিরিয়ার পরিস্থিতি আঞ্চলিক বিপর্যয়ের চরিত্র ধারণ করেছে, যার বিশ্বব্যাপী পরিণতি আছে, লিখেছেন বান কি মুন এক প্রবন্ধে, যা মঙ্গলবার প্রকাশ করেছে রাশিয়ার “নোভিয়ে ইজভেস্তিয়া” পত্রিকা. রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক আরও উল্লেখ করেছেন যে, সিরিয়ায় আগের মতোই পরিলক্ষিত হচ্ছে মানব অধিকারের রূঢ় লঙ্ঘন, যেমন সরকারের পক্ষ থেকে, তেমনই বিরোধী দলগুলির তরফ থেকে. তাছাড়া তিনি বলেন যে, আরব দেশগুলিতে এবং পৃথিবীর অন্যান্য জায়গায় ব্যাপক পরিসরের পরিবর্তনের পটভূমিতে প্যালেস্টাইনী-ইস্রাইলী সম্পর্ক যে কানাগলিতে গিয়ে পড়েছে, তা থেকে বের হওয়ার উপায় খুঁজে বার করা বিশেষ করে গুরুত্বপূর্ণ. সঙ্কট মীমাংসার একমাত্র গ্রহণযোগ্য পথ – দুই রাষ্ট্রের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান, জোর দিয়ে বলেন বান কি মুন. এ পরিকল্পনা এখনও বাস্তবায়িত করা যেতে পারে, বলেন বান কি মুন. প্রবন্ধে তিনি নিজের মত প্রকাশ করেন “মুসলমানদের নির্দোষিতা” চলচ্চিত্র দেখা দেওয়ার পরবর্তী ঘটনাবলি সম্বন্ধে, যে চলচ্চিত্র সারা পৃথিবীতে ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের অসন্তোষ জাগিয়েছে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক মনে করেন প্রত্যুত্তরী প্রতিক্রিয়া যুক্তিসঙ্গত, তবে তিনি হিংসাত্মক ক্রিয়াকলাপের ভিত্তিহীনতার কথা উল্লেখ করেন. বান কি মুন বলেন যে, বাক্ স্বাধীনতা এবং সভা-সমিতির স্বাধীনতার হিংসা প্ররোচিত করার অধিকার নেই.