চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়ান জেচি রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ অ্যাসেম্বলিতে জাপানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন যে, জাপান পূর্ব চীনা সাগরে দিয়াওইউইদাও দ্বীপপুঞ্জ ( জাপানী নাম সেনকাকু) চুরি করেছে. তিনি আবার বলেন যে, এ দ্বীপগুলি চীনের এবং প্রস্তাব করেন আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে ভূভাগীয় বিতর্ক মীমাংসা করার. একই সঙ্গে কূটনীতিজ্ঞ বলেন যে, “চীন একান্তভাবে জাপানকে আহ্বান জানাচ্ছে সে সমস্ত ক্রিয়াকলাপ বন্ধ করতে, যা তার ভূভাগীয় অখণ্ডতা লঙ্ঘন করে, এবং নিজের ভুল সংশোধনের জন্য সুনির্দিষ্ট ব্যবস্থা গ্রহণ করে”. এ দ্বীপপুঞ্জ নিয়ে চীন ও জাপানের বিতর্ক আবার জোরালো হয়ে উঠে, যখন ১১ই সেপ্টেম্বর জাপান সরকার বিতর্কিত দ্বীপপুঞ্জের একাংশ ব্যক্তিগত মালিকের কাছ থেকে কিনে নেয়. এ দ্বীপপুঞ্জের সত্ত্বাধিকার নিয়ে চীন ও জাপানের মাঝে বিতর্ক চলছে ১৯৭০-এর দশকের গোড়া থেকে. জাপান নিশ্চয়োক্তি করছে যে, এ দ্বীপপুঞ্জ তার অধিকারে রয়েছে ১৮৯৫ সাল থেকে, আর তার আগে এ দ্বীপপুঞ্জ কারুরই ছিল না. চীন জোর দিচ্ছে যে, এ দ্বীপপুঞ্জ চীনা সাম্রাজ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হয় ৬০০ বছর আগে, আর ১৭৮৩ ও ১৭৮৫ সালের জাপানী মানচিত্রে দিয়াওইউইদাও দ্বীপপুঞ্জ চীনের ভূভাগ হিসেবে দেখানো হয়েছে. দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে এ দ্বীপপুঞ্জ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণে ছিল এবং ১৯৭২ সালে ওকিনাওয়া দ্বীপের সাথে তা জাপানকে সমর্পণ করা হয়. তাইওয়ানে এবং মহাদেশীয় চীনে মনে করা হচ্ছে যে, জাপান বেআইনীভাবে এ দ্বীপপুঞ্জ অধিকার করে রেখেছে. জাপানের স্থিরবিশ্বাস যে, এ দ্বীপপুঞ্জ সর্বদা ওকিনাওয়া অঞ্চলের অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিল এবং ন্যায়সঙ্গতভাবে এ দ্বীপপুঞ্জ তারই.