অবিরাম মুষলধারে বৃষ্টি এবং তার ফলে দেখা দেওয়া ধ্বসের দরুণ ভারতের উত্তর-পুবে অন্ততপক্ষে ৩৩ জন মারা গেছে, দশ লক্ষেরও বেশি লোক নিজেদের বাড়ি-ঘর ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়েছে.এ সম্বন্ধে মঙ্গলবার লিখেছে ভারতের “টাইমস অফ ইন্ডিয়া” পত্রিকা. সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সিকিম এবং আসাম রাজ্য. মুষলধারে বৃষ্টি এক সপ্তাহের উপর থামছে না. আসামে, যেখানে জুন ও জুলাই মাসে জোর বন্যা হয়েছিল, লোকেরা আবার বন্যা থেকে বাঁচার জন্য উদ্বাস্তু শিবিরে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছে. প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের এলাকায় পড়েছে ভারতের উত্তর-পুবের ২০ লক্ষেরও বেশি বাসিন্দা. কর্তৃপক্ষ সেখানে জরুরী পরিস্থিতির বিরুদ্ধে সংগ্রামের দল পাঠিয়েছে, যারা উদ্বাস্তুদের সাময়িক থাকার জায়গার ব্যবস্থা করছে. বিপর্যয়ের এলাকায় পড়েছে বিখ্যাত সংরক্ষিত অঞ্চল কাজিরঙ্গ, যা ইউনেস্কো বিশ্ব-সম্পদ হিসেবে ঘোষণা করেছে. এখানে রয়েছে বাঘ, হাতি, হরিণ, এক শিংয়ের গণ্ডার, যা পৃথিবীর আর কোথাও এত সংখ্যায় নেই. বন্যার দরুণ এখানে কয়েক শো জীবজন্তু মারা গেছে.