সিরিয়ার সঙ্কট ও ইরানের পারমানবিক পরিকল্পনার সমস্যা ইত্যাদি বিষয় এই শীর্ষ সম্মেলনে আলোচ্য বিষয় হয়েছে. এই বিষয়ে বলা হয়েছে ইউরোপীয় সঙ্ঘ ও গণ প্রজাতন্ত্রী চিনের মধ্যে পনেরোতম শীর্ষ সম্মেলনের ফলাফল নিয়ে প্রকাশিত এক বিজ্ঞপ্তিতে. একই সঙ্গে আলোচিত হয়েছে কোরিয়া উপদ্বীপ এলাকার পারমানবিক সমস্যা নিয়েও, প্রসঙ্গ উঠেছে আফগানিস্তান মায়ানমার ও সুদান সংক্রান্ত বিষয়ে. দলিলে উল্লেখ করা হয়েছে যে আঞ্চলিক ও বিশ্ব জোড়া বহু সমস্যা সমাধানে ইউরোপীয় সঙ্ঘ ও চিনের মধ্যে আরও ঘনিষ্ঠ ভাবে সহযোগিতার প্রয়োজন আছে. দুই পক্ষই বিশ্বে নিরস্ত্রীকরণ ও গণ হত্যার অস্ত্র সম্প্রসারণ রোধ নিয়ে ঐক্যমত প্রকাশ করেছে. ইউরোপীয় সঙ্ঘ চিনের বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার রাষ্ট্রীয় ক্রয় সংক্রান্ত বিষয়ে যুক্ত হওয়ার চুক্তিকে সমর্থন করেছে ও চিনকে আহ্বান করেছে এই দিকে নিজেদের শক্তি সক্রিয় করতে. এই শীর্ষ সম্মেলনে চিনের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব করেছেন রাষ্ট্রীয় সভার প্রধান ভেন ঝিয়াবাও, ইউরোপীয় সঙ্ঘের পক্ষ থেকে হেরম্যান ভ্যান রম্পেই ও ইউরোপীয় কমিশনের প্রধান ঝোজে ম্যানুয়েল বারোজু.