রাশিয়ার মহান নভগোরদ শহরে রাশিয়ার রাষ্ট্র পরিচিতির ১১৫০ বছরের জয়ন্তী উপলক্ষে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে. এই উত্সবের অনুষ্ঠান পরিকল্পনা হয়েছে বিরাট জাঁক জমক পূর্ণ. এই প্রাচীন শহরের রাস্তায় ও বিভিন্ন মঞ্চে ফুটে উঠবে জীবন্ত হয়ে বহু বিভিন্ন বছরের নানা ছবি. এখানে শিল্প উত্সব হবে, প্রদর্শনী চলবে, রাশিয়ার “রুস” নামের পাইলট বাহিনী ভোলখভ নদীর উপরে দেখাবেন এক দারুণ উড়ানের শো.

সেই সময়ে লেখা লিপি থেকে জানা গিয়েছে যে, ৮৬২ সালের ২১শে সেপ্টেম্বর, প্রাচীন স্লাভনিক গোষ্ঠীর লোকরা, মহান নভগোরদ শহরের রাজা হিসাবে রিউরিক কে আহ্বান করেছিলেন. ভবিষ্যতের সম্রাট বংশের এই স্থপতি ঠিক কোন বংশের থেকে এসেছিলেন, তা আজ আর সঠিক ভাবে জানা যায় না. কেউ বলেন বর্তমানের ডেনমার্ক অথবা সুইডেন থেকে, আবার অন্যেরা জোর দিয়ে বলে থাকেন যে, তিনি নিজে ছিলেন স্লাভনিক গোষ্ঠীরই লোক. সেই সময়ের ইউরোপে বহুল প্রচলিত ঐতিহ্য ছিল বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে বিবাদ মেটানোর জন্য আলাদা করে বাইরের লোককে রাজা হওয়ার জন্য আহ্বান করে আনা. এই দিনটাই খুব প্রতীকী, কারণ রাষ্ট্র এক দিনেই গঠিত হয় না. কিন্তু তা সাহায্য করে উত্স মুখে ফিরে যেতে, এই কথাই উল্লেখ করে রুশ বিজ্ঞান একাডেমীর প্রতিনিধি সদস্য আন্দ্রেই সাখারোভ বলেছেন:

“সঠিক ভাবে বলতে হলে, আমরা রিউরিক সম্বন্ধে প্রচার করেই ক্ষান্ত হই নি, আমরা তার বংশের প্রতিও নজর দিয়েছি, যারা রাশিয়ার রাষ্ট্র গঠনের জন্য, বিকাশের জন্য ও তার পত্তনের জন্যেও অনেক কাজ করেছেন. আমরা এই উত্স মুখে দৃষ্টি আকর্ষণ এই কারণেই করেছি, যাতে মস্কোর অধীনস্থ রাষ্ট্র, সাম্রাজ্য ও রমানভ বংশ অবধি একটি ঘটনা পরম্পরার রেখা দেখতে পাওয়া যায়. এটা একটাই যোগসূত্র. আমরা রাশিয়ার রাষ্ট্র পরিচয় স্বীকৃতি পাওয়ার প্রধান অধ্যায় গুলি সম্বন্ধেই এখানে বলেছি”.

রাশিয়ার রাষ্ট্র গঠন উপলক্ষে সবচেয়ে জাঁক জমক পূর্ণ ও আনুষ্ঠানিক উত্সব করা হয়েছিল ১৮৬২ সালে, যখন মহান নভগোরদ শহরে সম্রাট দ্বিতীয় আলেকজান্ডার “রাশিয়ার হাজার বছরের” স্মৃতি সৌধ উদ্বোধন করেছিলেন. এই বছরে নভগোরদ শহরের ক্রেমলিন হবে প্রধান অনুষ্ঠানের জায়গা.

নভগোরদ শহরের জাদুঘর ও সংরক্ষিত অঞ্চলে খোলা হবে “রিউরিকদের নগর” নামে এক প্রদর্শনী. সেখানে এই ঐতিহাসিক জায়গাকে দেখানো হয়েছে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় অস্তিত্বের শৈশব ভূমি বলে. এখানে রাজতন্ত্রের কাঠামো তৈরী হয়েছিল. ফলে নভগোরদ পরে হয়েছিল রাশিয়ার প্রথম গণ রাজ্য. বেশ কয়েক শতাব্দী ধরেই তারপরে নভগোরদ বাসীরা শহরের সম্মেলনে সমস্ত রাজনৈতিক প্রশ্নের মীমাংসা করত. সুতরাং মহান নভগোরদ গণতন্ত্রেরও শৈশব ভূমি ছিল. আজকের রাশিয়ার রাষ্ট্র স্থাপন দিবসের ১১৫০ বছরের জয়ন্তী উত্সব শেষ হবে আতস বাজীর প্যারেড দিয়ে.