এই ধারা অনুযায়ী নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গ কারী দেশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়ে থাকে. লাভরভ আন্তর্জাতিক জীবন নামের জার্নালে সাক্ষাত্কার দিতে গিয়ে বলেছেন যে, এই ক্ষেত্রে কথা হচ্ছে দেশের ভিতরের বিরোধ নিয়ে ও কোন রকমের ভিত্তি নেই যাতে এই বিরোধে হস্তক্ষেপ করা যেতে পারে. তিনি আবার করে বলেছেন যে, সিরিয়াতে সমস্ত বিরোধী পক্ষের উপরে প্রভাব খাটিয়ে তাদের একসঙ্গে আলোচনার টেবিলে বসানোই একমাত্র সঠিক পথ. জেনেভাতে কাজের গোষ্ঠীর ও রাষ্ট্রসঙ্ঘের আগের দুটি সিরিয়া সংক্রান্ত সিদ্ধান্তে এই ধরনের প্রভাবের সমস্ত সম্ভাবনা রয়েছে, কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চায় একতরফা ভাবে আসাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হোক, যা রাশিয়া কোন ভাবেই হতে দেবে না.