টিউনিশিয়ার পুলিশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের কাছে মিছিলকারীদের ছত্রভঙ্গ করেছে কাঁদুনে গ্যাস ব্যবহার করে, যারা প্রতিবাদ করছিল “মুসলমানদের নির্দোষিতা” নামে চলচ্চিত্রের বিরুদ্ধে, যাতে মুসলমান ধর্মবিশ্বাসীদের অনুভূতির অবমাননা করা হয়েছে. এ চলচ্চিত্রটি মিশরের রাজধানী কায়রো-তে এবং লিবিয়ার বেনগাজি শহরে মার্কিনী কূটনৈতিক প্রতিনিধি দপ্তরে আক্রমণ প্ররোচিত করেছে. লিবিয়ার বেনগাজি শহরে মার্কিনী কনস্যুল দপ্তরে গুলি বর্ষণের ফলে নিহত হন মার্কিনী রাষ্ট্রদূত ক্রিস্টোফার স্টিভেন্স এবং আরও তিন জন কূটনীতিজ্ঞ. ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় চলচ্চিত্রটির চূড়ান্ত নিন্দে করেছে, আর মিশরের রাষ্ট্রপতি মুহম্মদ মুর্সি ওয়াশিংটনে মিশরের রাষ্ট্রদূতকে নির্দেশ দিয়েছেন এ চলচ্চিত্রের নির্মাতাদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করতে. মার্কিনী “ওয়াল স্ট্রীট জার্নাল” পত্রিকার তথ্য অনুযায়ী, “মুসলমানদের নির্দোষিতা” নামে স্বল্প দৈর্ঘ্যের এ অপেশাদারী চলচ্চিত্রটি তুলেছেন ইহুদী জাতির মার্কিনী নাগরিক স্যাম বেসিল, যিনি কাজ করেন স্থাবর সম্পত্তি নিয়ে. এদিকে মিশরীরা গত রাতে কায়রোয় মার্কিনী দূতাবাস আক্রমণের দ্বিতীয় চেষ্টা করেছে. বিশৃঙ্খলার সময় একটি মোটরগাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে. মিশরের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, দশ জনেরও বেশি লোক আহত হয়েছে. কায়রো-তে মার্কিনী দূতাবাসের কাছে প্রথম মিছিল হয়েছিল মঙ্গলবার. প্রতিবাদ আন্দোলনের অংশগ্রহণকারীরা মার্কিনী-বিরোধী স্লোগান তোলে এবং দূতাবাসের সামনে লাগানো মার্কিনী পতাকা পুড়িয়ে দেয়.