আন্তর্জাতিক মধ্যস্থ “ছয় দেশের” (রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য পাঁচটি দেশ এবং জার্মানি) প্রতিনিধিরা ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি সম্পর্কে আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির খসড়া সিদ্ধান্তের বয়ান সর্বসম্মত করেছেন. এ দলিলে দেশগুলি ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচির বিকাশ সম্পর্কে গুরুতর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে, আর তাছাড়া তেহেরানকে আহ্বান জানাচ্ছে আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির পরিদর্শকদের সাথে সহযোগিতা করতে এবং সমস্ত পারমাণবিক প্রকল্পে তাদের প্রবেশ করতে দিতে. আশা করা হচ্ছে যে, এজেন্সির পরিচালকদের পরিষদে এ সিদ্ধান্ত নিয়ে ভোটদান হবে বৃহস্পতিবার. আগে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরোভ বলেন যে, মস্কো আশা করছে যে এজেন্সি ইরান সম্পর্কে রাশিয়া ও চীনের দ্বারা প্রস্তাবিত সিদ্ধান্ত একমতে গ্রহণ করবে. তিনি বলেন যে, “মধ্যস্থ ছয় দেশে” পশ্চিমী শরিকরা কঠোর খসড়া সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে চেয়েছিলেন, যা অনুযায়ী, নতুন নিষেধাজ্ঞা প্রবর্তন অনুমিত ছিল. রাশিয়া ও চীন এমন দৃষ্টিভঙ্গীর বিরুদ্ধে মত প্রকাশ করেছে, কারণ তা বাধ্য করার দিকে একতরফা ঝোঁক নিচ্ছে এবং তাতে আলাপ-আলোচনা পুনরারম্ভের জন্য পরিবেশ সৃষ্টির প্রয়োজনীয়তা বিবেচিত হয় নি, বলেন রাশিয়ার মন্ত্রী. তাঁর কথায়, রাশিয়া ও চীন প্রস্তাব করেছে, যাতে মধ্যস্থ “ছয় দেশ” মস্কো ও বেজিংয়ের দৃষ্টিভঙ্গী ব্যাখ্যা করা বিবৃতি গ্রহণ করে, যে বিবৃতি আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে পরিস্থিতি মীমাংসার সুযোগ দেবে. পশ্চিমী শরিকরা “অবশেষে আমাদের ও চীনাদের সমস্ত ধারণাগত দৃষ্টিভঙ্গী ও সূত্র গ্রহণ করেছে”, যোগ করে বলেন লাভরোভ.