মস্কোয় আশা করা হচ্ছে যে, কেন্দ্রীয় এশিয়ায় বিদেশী সামরিক উপস্থিতি আফগান পরিস্থিতির সাথে জড়িত লক্ষ্যেই সীমিত থাকবে. এ সম্বন্ধে রেডিও রাশিয়াকে প্রদত্ত এক ইন্টারভিউতে বলেছেন রাশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলেক্সান্দর গ্রুশকো. বর্তমানে তিনি ন্যাটো জোটে রাশিয়ার নতুন স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে অনুমোদন পাওয়ার পর্যায়ে রয়েছেন. তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, রাশিয়া এগুচ্ছে এ থেকে যে, এ অঞ্চলে সামরিক উপস্থিতি জড়িত থাকবে শুধু আফগান পরিস্থিতির সাথে, এ সম্পর্কে সমস্ত প্রতিশ্রুতি পালন করা হবে.কেন্দ্রীয় এশিয়ার কথায় এসে গ্রুশকো উল্লেখ করেন যে, এ অঞ্চল রাশিয়া-ন্যাটো অথবা রাশিয়া-মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পরিমাপেই সীমিত নয়. তিনি বলেন যে, কেন্দ্রীয় এশিয়ায় স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তা বজায় রাখার দায়িত্ব সর্বপ্রথমে আরোপিত হওয়া উচিত্ অঞ্চলের রাষ্ট্রগুলিরই উপর, বাইরের কোনো হস্তক্ষেপ ছাড়া. তিনি মনে করিয়ে দেন যে, আফগানিস্তানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্তের দ্বারা. রাশিয়া এ মত প্রকাশ করছে যে, ভবিষ্যতেও তা যেন রাষ্ট্রসঙ্ঘের বিধানের আওতায় থাকে. ২০১৪ সালে আফগানিস্তান থেকে নিরাপত্তায় সহায়তার আন্তর্জাতিক বাহিনীর চলে যাওয়ার আগে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের কাছে তার ম্যান্ডেট পালন সম্পর্কে রিপোর্ট দেওয়া উচিত্, উল্লেখ করেন কূটনীতিজ্ঞ. গ্রুশকো আরও বলেন যে, মস্কো উদ্বিগ্ন ২০১৪ সালের পরে আফগানিস্তানে সামরিক উপস্থিতি দেখতে কি রকমের হবে সে সম্পর্কে. তিনি রেডিও রাশিয়াকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে জোর দিয়ে বলেন, “আমাদের উদ্বিগ্ন করে এ বিষয় যে, প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, আফগানিস্তানে এখন গঠিত হচ্ছে ঘাঁটি, যেখানে হাজার দশেক সামরিক কর্মী থাকতে পারে”.