আগামী গ্রীস্মে কাজানে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্ব ছাত্র ক্রীড়ার সংগঠনে রাশিয়া ও অন্যান্য দেশ থেকে প্রায় ২০ হাজার স্বেচ্ছাসেবক অংশ নেবে. ‘রেডিও রাশিয়া’কে ক্রীড়া সংগঠকেরা জানিয়েছেন, যে কিভাবে ২০১৩ সালের গেমসে স্বেচ্ছাসেবকের পদ পাওয়া যেতে পারে.

সংগঠকদের ভাষায়, যে কেউ স্বেচ্ছাসেবক হতে পারে. আসল হল – আন্তরিক ইচ্ছা. ইউনিভার্সিয়াডের সাহায্যকারী হওয়ার জন্য গেমসের ওয়েব-সাইটে আবেদনপত্র পূরণ করতে হবে অথবা সোশ্যাল নেট-ওয়ার্কের মারফতে পাঠাতে হবে.

স্বেচ্ছাসেবকদের কিছু গুণ থাকতে হবে. এরকম ব্যক্তিগত গুণ থাকতে হবে, যেমন মেলামেশার অভ্যাস, দলবদ্ধ থেকে কাজ করার মুন্সীয়ানা, টেনসন সহ্য করার সামর্থ্য. কয়েকটা ক্রীড়াকেন্দ্রে কাজ করার জন্য চাই বাড়তি জ্ঞান. যেমন স্বেচ্ছাসেবক যদি সাংবাদিকদের কেন্দ্রের কাজে সহায়তা করতে চায়, তাহলে তাকে বিভিন্ন কম্পিউটার প্রোগ্র্যাম জানতে হবে. স্বেচ্ছাসেবকদের সাথে কাজের ম্যানেজার নেলিয়া ফাখরুদ্দিনভা বলছেন, যে বিদেশী ভাষা জানা আবশ্যকীয়.

আমরা অগ্রাধিকার দেব তাদেরই, যারা শুধু ইংরাজী নয়, আরও দ্বিতীয় কোনো বিদেশী ভাষা জানে. যখন কোরিয়ান ভাষা জানা লোক কোরিয়দের সাথে কাজ করে, সেটা দুর্দান্ত. ভাষারও চর্চা হয় এবং বিদেশীদেরও খুব সুবিধা হয়.

ইতিমধ্যেই ২২ হাজার লোক বিনাবেতনে কাজ করার ইচ্ছাপ্রকাশ করেছে. অধিকাংশ আবেদনপত্রই জমা পড়েছে রাশিয়ার ছাত্রদের তরফ থেকে, তবে বিদেশীদের কাছ থেকেও কম আবেদন জমা পড়েনি. বিশেষতঃ সেইসব দেশ, যেখানে ইউনিভার্সিয়াড আয়োজিত হয়েছিল ও সেইসব দেশ, যারা আয়োজন করতে চলেছে, সেখানকার লোকেরা বিশেষ আগ্রহ প্রকাশ করছে. সেরকম আবেদনপত্র আলাদা ক্যাটেগরিতে রাখা হযেছে – ‘অতীতের ও ভবিষ্যতের সেচ্ছাসেবক’. কাজানে চীন, তাইওয়ান, তুরস্ক, সার্বিয়া থেকে প্রচুর স্বেচ্ছাসেবকের যোগদান করার প্রত্যাশা করা হচ্ছে. আবেদনপত্র আফ্রিকার দেশগুলি, মেক্সিকো, উরুগুয়ে ও ইউরোপীয় দেশগুলি থেকেও জমা পড়ছে.

স্বেচ্ছাসেবিকা রেজেদা আহমেতভার কথায়, কাজ করার সময় বিভিন্ন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়. যেমন, কখনো কখনো ক্রীড়াবিদকে ফাইন্যালে হেরে যাওয়ার পরে সংবাদ সম্মেলনে যাওয়ার জন্য অনুরোধ উপরোধ করতে হয়.

বোঝাতে হয়, যে ইন্টারভ্যিউ দিয়ে আপনি আপনার ইভেন্টকেই জনপ্রিয় করছেন ও আপনার ব্যক্তিত্বের প্রতি মনোযোগ আকর্ষিত হবে. অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তাদের রাজি করানো সম্ভব হয়.

আগস্টের শেষে-সেপ্টেম্বরের শুরুতে কাজানে প্রতিযোগিতার প্রথম পরীক্ষা হয়ে গেল. বাইচ ও ক্যানোয় ও শ্যুটিংয়ের প্রতিযোগিতার সংগঠনে অংশ নিয়েছিল ১২০০ স্বেচ্ছাসেবী. তাদের কাজের উচ্চ মূল্যায়ণ করেছে দেশী বিদেশী বিভিন্ন ক্রীড়াসংস্থা. স্বেচ্ছাসেবীরাও নিজেদের পক্ষ থেকে ইউনিভার্সিয়াডকে সফল করবার জন্য সর্বতোভাবে চেষ্টা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে.