0মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ার বিরোধীপক্ষের সাথে সক্রিয়ভাবে কাজ করতে চায় এবং সিরিয়ার বর্তমান রাষ্ট্রপতি বাশার আসদ-কে উত্খাত করায় তাকে সাহায্য করতে চায়, সেই সঙ্গে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদকে এড়িয়ে. এ সম্বন্ধে সাংবাদিকদের বলেছেন মার্কিনী পররাষ্ট্র সচিব হিলারী ক্লিন্টন ভ্লাদিভস্তোকে এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনৈতিক সহযোগিতা সংস্থার শীর্ষ সম্মেলনের পরে. এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনৈতিক সহযোগিতা সংস্থার শীর্ষ সম্মেলনের কাঠামোতে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি পুতিন এবং রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী লাভরোভের সাথে সাক্ষাতে একটি আলোচ্য বিষয় ছিল সিরিয়ার সমস্যা, এ কথা উল্লেখ করে পররাষ্ট্র সচিব জানান: “আমি বলেছি যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়া সম্পর্কে তাঁদের দৃষ্টিভঙ্গীর সাথে একমত নয়”. একই সঙ্গে ক্লিন্টন উল্লেখ করেন যে, তিনি লাভরোভের সাথে কাজ চালিয়ে যাবেন, “এ বিষয় বোঝার জন্য যে, গ্রীষ্মকালে জেনেভায় সর্বসম্মত করা রাজনৈতিক উত্তরণের পরিকল্পনাকে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্তে পরিবর্তিত করার ধারণা পুনরুত্থিত করতে পারব কি না”. মার্কিনী পররাষ্ট্র সচিব যোগ করে বলেন যে, “দন্তহীন সিদ্ধান্ত” গ্রহণের অর্থ দেখেন না. তাঁর কথায়, নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্ত ফলপ্রদ হবে যদি তা না পুরণের ক্ষেত্রে দামাস্কাসের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা প্রবর্তন অনুমিত থাকে. রাশিয়া সিরিয়ার কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে একতরফা নিষেধাজ্ঞা প্রবর্তনের বিরুদ্ধে মত প্রকাশ করছে. আশা করা হচ্ছে যে, সিরিয়া সম্পর্কে পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের পর্যায়ে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের বিশেষ বৈঠক আহূত হবে ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয়ার্ধে.