রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সিরিয়ায় বেসামরিক বিমান উড্ডয়ন বন্ধ করার জন্য তথাকথিত “সিরিয়ার স্বাধীন বাহিনীর” চরম দাবির হুমকি সহ্য করতে চায় না. মস্কো এ সম্বন্ধে আবেদন করেছে সেই সব দেশের কাছে, যাদের সিরিয়ার রাডিক্যাল বিরোধী গ্রুপের প্রভাব আছে, মন্ত্রণালয়ের বিবৃতির উদ্ধৃতি দিয়ে এ সম্বন্ধে মঙ্গলবার জানিয়েছে “ইন্টারফাক্স” সংবাদ এজেন্সি. রাশিয়ায় উদ্বেগের সাথে গ্রহণ করা হয়েছে তথাকথিত “সিরিয়ার স্বাধীন বাহিনীর” এ বিবৃতি যে, দামাস্কাস ও খালেব (আলেপ্পো) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এখন থেকে সামরিক লক্ষ্যস্থল হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে এবং বেসামরিক বিমান ভূপাতিত করা হবে. আগে, সিরিয়ার স্বাধীন বাহিনীর অধিনায়কমন্ডলী এক বিবৃতি দিয়েছিল, যাতে বিমান পরিবহণ সংস্থাগুলিকে মঙ্গলবার ৪ঠা সেপ্টেম্বর থেকে দামাস্কাস ও খালেবে বিমান-যাত্রা না করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল. রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে “সিরিয়ার স্বাধীন বাহিনীর” এ হুমকিকে আন্তর্জাতিক বিধানের, সর্বপ্রথমে “আন্তর্জাতিক বেসামরিক বিমান-যাত্রা সংক্রান্ত” ১৯৪৪ সালের চিকাগো কনভেনশনের লঙ্ঘন হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে. রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ঘোষণা করা হয়েছে যে, এ ধরণের বিবৃতির অর্থ বিরোধীপক্ষ সেই সঙ্কটজনক “লাল রেখার” খুব কাছাকাছি পৌঁছেছে, এবং তার পরবর্তী কার্যকলাপের সাথে “আল-কাইদার” অপরাধের কোনো পার্থক্য নেই. রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে উল্লেখ করা হয়েছে, ““সিরিয়ার স্বাধীন বাহিনীর” শেষ বিবৃতি, বাস্তবিকপক্ষে, এ বিষয় সমর্থন করে যে, সন্ত্রাসবাদ তার কার্যকলাপের একটি মুখ্য পদ্ধতিতে পরিত হচ্ছে. তবে সে সব রাষ্ট্র, যারা সিরিয়ার আপোষহীন বিরোধীদের পৃষ্ঠপোষকতা করছে, কর্তৃপক্ষের সাথে সংলাপ প্রত্যাখান করায় এবং “বিজয় পর্যন্ত সংগ্রাম” করে যাওয়ায় প্রেরণা দিচ্ছে, তা লক্ষ্য না করাই পছন্দ করছে”. পররাষ্ট্র বিভাগের কথায়, “সিরিয়ার স্বাধীন বাহিনীর হুমকি কার্যক্ষেত্রে বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে তার পরিণতি সম্পর্কে পূর্ণ দায়িত্ব শুধু প্রত্যক্ষ সাধকদের উপরই নয়, তাদের পৃষ্ঠপোষকদের উপরও আরোপিত হবে”. সিরিয়ায় গড়ে ওঠা পরিস্থিতি উপলক্ষে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় রাশিয়াবাসীদের প্রতি পরামর্শ পুনরাবৃত্তি করছে সিরিয়ায় যাত্রা করা থেকে বিরত থাকার, এবং সেখানে বাস করা রাশিয়ার নাগরিকদের আহ্বান জানাচ্ছে নিরাপদ যাত্রাপথ ব্যবহার করার.