রুসস্কি নামক দ্বীপে আজ এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকার শীর্ষবৈঠকের জন্য আন্তর্জাতিক প্রেস-সেন্টার চালু করা হয়েছে. রুশী, জাপানী ও কোরিয়ান সাংবাদিকরা ইতিমধ্যেই সেখানে যোগ দিয়েছে. বৈঠকের সপ্তাহ শুরু হবে ২রা সেপ্টেম্বর. শুরুতে থাকবে যুব-ফোরাম ও সংস্থার পুরনো পদশীল ব্যক্তিদের সাথে সাক্ষাত্কার.

শীর্ষবৈঠক অনুষ্ঠিত হবে ৮-৯ই সেপ্টেম্বর. রাশিয়ার তরফ থেকে রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন প্রতিনিধিত্ব করবেন. এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকার বিষয়ে বিশেষজ্ঞ ভিচেস্লাভ আমিরভ বলছেন.

আমরা আশা করছি বাণিজ্য ও অর্থনীতিকে আরও স্বাধীন করার জন্য এই এলাকায়. আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ প্রযুক্তির আদান-প্রদান ও শুদ্ধ কৃষিপণ্যের উত্পাদনের বিকাশ. রাশিয়ার যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের জন্য স্বাক্ষরিত দলিলপত্রও আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ. এই এলাকায় খাদ্য সরবরাহের নিরাপত্তা ও দরদাম স্থিতিশীল রাখাও আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ.

রাজনীতিবিদ ভিচেস্লাভ নিকোনভ বলছেন এই প্রসঙ্গে.

রাশিয়া প্রথমতঃ প্রত্যাশা করছে, যে শীর্ষবৈঠক সফল হলে রাশিয়ার মর্যাদা বাড়বে. ভবিষ্যতেও রাশিয়া ঐ এলাকার সক্রিয় খেলুড়ে হিসাবে অধিকতর মনোযোগ আকর্ষন করবে, বিদেশী বিনিয়োগ ও যৌথ প্রকল্পের ক্ষেত্রে. বর্তমানে রাশিয়ার বাজারে এশিয়ার কোম্পানীগুলি ইউরোপীয় কোম্পীনীগুলির থেকে বেশি সক্রিয়, সুতরাং রাশিয়া আরও গভীরে ঐ এলাকার বাজারে প্রবেশ করার আশা করতে পারে, বিশেষতঃ নিজস্ব জ্বালানী নিয়ে.

১ সপ্তাহের জন্য বিশ্ব রাজনীতির রাজধানীতে পরিণত হয়েছে ভ্লাদিভস্তোক. রাশিয়া চায়, যাতে অতিথিদের সব স্বাদ-আল্হাদ পূরণ করা যায়. ১০ হাজার পুলিশ ও সৈনিক অতিথিদের নিরাপত্তা রক্ষা করবে. এইজন্য্ ১১টা জাহাজ, ৬টা হেলিকপ্টার চালু করা হয়েছে. স্থানীয় আবহাওয়া তত্ত্ববিদরা জানিয়েছে, যে শীর্ষবৈঠক চলাকালে কোনো ঝড়ঝঞ্ঝার আশঙ্কা নেই.