তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেত দাউতোগলু প্রাক্কালে অনুষ্ঠিত রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকের ফলাফলে নিজের হতাশা লুকিয়ে রাখেন নি. তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, এ বৈঠক থেকে তিনি প্রায়োগিক সিদ্ধান্তের আশা করেছিলেন, কিন্তু তা গৃহীত হয় নি. ফ্রান্সের উদ্যোগে সিরিয়ায় মানবতাবাদী সাহায্য সংক্রান্ত রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের জরুরী বৈঠক পররাষ্ট্র মন্ত্রীদের পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হয়েছিল বৃহস্পতিবার. তাতে কোনো সিদ্ধান্ত অথবা ঘোষণাপত্র গৃহীত হয় নি. এ বৈঠকে নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী পাঁচটি দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শুধু গ্রেট-বৃটেন ও ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী, রাশিয়া ও চীনের মন্ত্রীরা এবং মার্কিনী পররাষ্ট্র সচিব তাতে অংশগ্রহণ করেন নি. রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রথম সহকারী সাধারণ সম্পাদক ইয়ান এলিয়াসন সিরিয়ায় সাহায্য প্রয়োজন এমন লোকেদের জন্য মানবতাবাদী সাহায্য সুনিশ্চিত করার প্রয়োজনের কথা বলেন. তিনি, বিশেষ করে, এ দেশে রাষ্ট্রসঙ্ঘের মানবতাবাদী সংস্থা ও বেসরকারী সংস্থার উপস্থিতি বাড়ানোর পক্ষে মত প্রকাশ করেন, এবং সঙ্ঘর্ষলিপ্ত পক্ষগুলিকে তাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার আহ্বান জানান. রাষ্ট্রসঙ্ঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভিতালি চুরকিন বৈঠকে বলেন যে, রাশিয়া সিরিয়ার বিরুদ্ধে একতরফা নিষেধাজ্ঞা প্রবর্তনের বিরুদ্ধে এবং তিনি জারি করা এমন নিষেধাজ্ঞা বাতিলের আহ্বান জানান.