লন্ডনে ২৯শে আগষ্ট থেকে ৯ই সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে ২৪তম গ্রীষ্ম প্যারাঅলিম্পিক প্রতিযোগিতা, যেখানে খেলোয়াড়রা ২০টি ধরনের খেলায় প্রতিযোগিতায় অংশ নেবেন. রাশিয়া থেকে লন্ডনে চলে এসেছেন ১৮৩ জন খেলোয়াড়. জাতীয় দলে রয়েছেন বহু বারের প্যারাঅলিম্পিক চ্যাম্পিয়ন খেলোয়াড়রাও. মহিলা সাঁতারু ওলগা সকলোভা প্যারাঅলিম্পিকে দেশের হয়ে অংশ নিতে এবারে গিয়েছেন পঞ্চম বারের মতো.

বিশ্বে প্যারাঅলিম্পিক প্রতিযোগিতার উপরে আগ্রহ বেড়ে চলেছে – এখনই এই প্রতিযোগিতায় বিক্রী হয়ে গিয়েছে প্রায় পঁচিশ লক্ষ টিকিট. এই প্রতিযোগিতাকে সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ করবেন বহু সহস্র সাংবাদিকরা, এই কথা রেডিও রাশিয়াকে উল্লেখ করে রাশিয়ার প্যারাঅলিম্পিক কমিটির সাধারন সম্পাদক মিখাইল তেরেন্তিয়েভ বলেছেন:

“সবচেয়ে বড়, যা আমি প্যারাঅলিম্পিক প্রতিযোগিতা থেকে আশা করছি, এটা অবশ্যই হল যে, আমাদের খেলোয়াড়রা খুবই শক্তিশালী ভাবে মর্যাদার সঙ্গে সেখানে অংশ নেবেন. আর প্রতিদিনই আমাদের খেলোয়াড়রা ভাল ফল দেখাবেন, যে ফলের জন্য চার বছর ধরে তাঁরা প্রস্তুত হয়েছেন”.

প্রতিবন্ধী লোকদের মধ্যে প্রথম প্রতিযোগিতা গ্রেট ব্রিটেনে হয়েছিল ১৯৪৮ সালে লন্ডনে. তখন ১৬ জন সামরিক বাহিনীর প্রাক্তন কর্মী ম্যান্ডেভিলা শহরের একটি হাসপাতালে প্রতিযোগিতা করেছিলেন তীরন্দাজী প্রতিযোগিতায়. চার বছর বাদে রোমে প্রথম প্যারাঅলিম্পিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছিল. তাতে বিশ্বের ২৩টি দেশ থেকে ৪০০ জন খেলোয়াড় যোগ দিয়েছিলেন. এটাই এক শক্তিশালী প্যারাঅলিম্পিক আন্দোলনের জন্য শুরু হয়েছিল, যা প্রতি বছরের সঙ্গেই আরও বেশী করে লোকের মনোযোগ আকর্ষণ করতে পেরেছিল. আর এটা আগে থেকেই ভাবা সম্ভব হয়েছিল, কারণ প্যারাঅলিম্পিক গেমসের প্রধান কাজ – চমত্কৃত করা, এই রকমই মনে করে রাশিয়ার প্যারাঅলিম্পিক ফেন্সিং ফেডারেশনের সভাপতি এলেনা বেলকিনা বলেছেন:

“প্যারাঅলিম্পিক – এটা বিশ্ব পর্যায়ের এত বড় একটি ঘটনা, যা করাই হয়েছে বিশ্বকে বিস্মিত করার জন্য. প্রতিবন্ধী মানুষরা কি করে প্রতিযোগিতায় অংশ নেন, লড়াই করেন ও দারুণ সমস্ত প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে দেখিয়ে দেন মানুষের মানসিক শক্তির ক্ষমতা”.

এই বারের খেলাধূলা হবে বিশ্বের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় খেলা – তাতে অংশ নেবেন বিশ্বের ১৬৫ দেশ থেকে খেলোয়াড়রা – এটা বেজিং অলিম্পিকে অংশ নেওয়া দেশের থেকে ১৯টি দেশ বেশী. আর ১৬টি দেশের জন্য এটা হবে তাদের প্রথম বারের মতো অংশগ্রহণ. বিশ্বের সমস্ত টেলিভিশন চ্যানেল প্রায় ১৬ মিলিয়ন ডলারের সমান অর্থের চুক্তি করেছে, এই খেলাধূলা প্রচারের জন্য – এটাও সমস্ত সময়ের মধ্যে রেকর্ড পরিমান. সুতরাং আগামী প্রতিযোগিতার সব মিলিয়ে চারশো কোটি লোক দেখবেন.