আজ ২০শে আগষ্ট মস্কোর পাক্লোন্নায়া গরা নামের জায়গায় রুশ দেশের প্যারা অলিম্পিক জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের লন্ডনে শারীরিক ভাবে প্রতিবন্ধীদের অলিম্পিকের জন্য আনুষ্ঠানিক ভাবে পাঠানো হবে. এই অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন দেশের রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন. রাশিয়ার প্যারা অলিম্পিক দল অ্যাথলেটিক্স, শ্যুটিং, সাঁতার ও অন্যান্য নানা বিভাগে অংশ নেবেন. বেশীর ভাগ বিষয়েই বিশেষজ্ঞদের মতে রাশিয়ার খেলোয়াড়রা স্বর্ণ পদকের জন্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে তৈরী.

প্রায় ২০০ খেলোয়াড় লন্ডনের প্যারা অলিম্পিক গেমসে রাশিয়ার হয়ে প্রতিনিধিত্ব করবেন. তা শুরু হতে চলেছে ২৯শে আগষ্ট, আজই তাই সম্মিলিত জাতীয় দলকে মস্কো শহরে আনুষ্ঠানিক ভাবে বিদায় জানানো হবে. এই গেমসে প্রায় ২০টি ধরনের খেলাধূলায় ৫০০ সেট পদক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে. রাশিয়া লোকরা বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই পুরস্কার পাওয়া র উপযুক্ত, এই কথা উল্লেখ করে রেডিও রাশিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে রুশ প্যারা অলিম্পিক দলের নেতা পাভেল রঝকভ বলেছেন:

“আমরা আশা করছি যে, আমাদের খেলোয়াড়রা অ্যাথলেটিক্স, সাঁতার, শ্যুটিং, পাওয়ার লিফটিং, টেবিল টেনিস এই সব বিষয়ে ভাল ফল করবেন, যেগুলিতে আমরা অংশ নেবো. আমরা আশা করছি যে, পদক পাওয়া যাবে, আর আমরা ২০টি বিষয়ের মধ্যে ১২ রকমের খেলাধূলায় অংশ নেবো”.

রাশিয়ার মেয়ে সাঁতারু ওলেসিয়া ভ্লাদীকিনা আজকের দিনে সাঁতারের এক ফেভারিট নাম. খুবই সুন্দরী, প্রায় মডেলের মতো দেখতে এই মেয়ে – যাকে প্রথম বার দেখলে মনেই হবে না যে, তার কোনও শারীরিক সীমাবদ্ধতা রয়েছে. এই মেয়ে সাঁতারু ছোট বেলা থেকেই সাঁতার কাটতেন, পরে এক দুর্ঘটনায় তাঁর হাত কাটা যায়. কিন্তু ট্র্যাজেডি স্বত্ত্বেও, ওলেসিয়া সাঁতার কাটা চালিয়ে যান ও বহু প্রতিযোগিতায় জয়ী হয়ে শেষে বেজিং অলিম্পিকেও চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন. লন্ডন থেকে তিনি ঠিক করেছেন শুধু একটাই সোনার মেডেল না আনার, তাই জাতীয় শারীরিক সীমাবদ্ধতা সংক্রান্ত সমস্যা কেন্দ্রের কার্যকরী কমিটির সভাপতি আলেকজান্ডার লীসেঙ্কো বলেছেন:

“বেজিংয়ে আমাদের অনেক খেলোয়াড়ই সোনার পদক জিতেছেন, যেমন – দারুণ সাঁতারু ও সুন্দরী মেয়ে ওলেসিয়া ভ্লাদীকিনা, যিনি ব্রেস্ট স্ট্রোকে সোনা জিতেছিলেন, আর আমি মনে করি যে, এই বারের খেলাতেও তিনি অন্যান্য রকমের সাঁতারে সোনার পদকের জন্য লড়াই করতেই পারেন. আমাদের খেলোয়াড়রা, যাঁরা লন্ডন যাচ্ছেন এই প্যারা অলিম্পিকে যোগ দিতে, তাঁরা প্রমাণ করে দিয়েছেন যে, সব চেয়ে মোদ্দা কথা হল – শরীরের উপরে মনের জয়. মানুষের জানা উচিত্ যে, তারা কি কে জয় লাভ করেন, কত শক্তি, তার মধ্যে মানসিক শক্তিও, তাঁরা প্রয়োগ করেন আর তাঁদের থেকেই উচিত্ উদাহরণ নেওয়া. আমি আমাদের প্যারা অলিম্পিক দলের খেলোয়াড়দের জন্য জয় কামনা করি”.

বেজিংয়ে রাশিয়ার প্যারা অলিম্পিক দল সমস্ত জাতীয় দলের মধ্যে অষ্টম স্থান পেয়েছিল. এটা খুবই ভাল ফল, কারণ আমাদের দেশ খুব একটা বেশী দিন হয় নি, যখন এই ধরনের শারীরিক ভাবে সীমাবদ্ধ লোকদের সক্রিয়ভাবে সহায়তা করতে শুরু করেছে, তাই আলেকজান্ডার লীসেঙ্কো বলেছেন:

“অন্যান্য দেশে, যেখানে আরও ভাল সব বন্দোবস্ত রয়েছে, তারা ভাল করেই বুঝতে পারে যে, রাশিয়া খুব বেশী দিন হয় নি এই পথে চলতে শুরু করেছে, আমরা শুধু মাত্র এই বছরেই রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রতিবন্ধীদের অধিকার সংক্রান্ত কনভেনশন আমাদের দেশে আইন হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছি, জাতীয় পরিকল্পনা বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে. আমাদের প্যারা অলিম্পিক দলের খেলোয়াড়দের বিজয় এই ক্ষেত্রে প্রক্রিয়াকে খুবই গতি আনতে সাহায্য করে থাকে, আর এটা আমরা দেখে ছিলাম বেজিং প্যারা অলিম্পিক গেমসের পরেই. দেশের মানবাধিকার রক্ষা বিষয়ে প্রধান ও রাশিয়ার প্যারা অলিম্পিক পরিষদের প্রধান ভ্লাদিমির লুকিনকে অসংখ্য ধন্যবাদ, তাঁর জন্যই সবাই মিলে আমাদের প্যারা অলিম্পিক দলের অলিম্পিক বিজয় কে সাধারন অলিম্পিক বিজয়ের মতই মর্যাদা আদায় করতে পেরেছে”.

লন্ডনের প্যারা অলিম্পিকে সরকারের সহায়তার জন্যই খেলোয়াড়রা এবারে যাচ্ছেন নিজেদের ব্যক্তিগত প্রশিক্ষককে সঙ্গে নিয়ে. প্যারা অলিম্পিকে ভাল ফল করার মতো সমস্ত রকমের বন্দোবস্তই হয়েছে, খেলোয়াড়রাও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য প্রস্তুত.

লন্ডনে প্যারা অলিম্পিক দল পাঠানোর বিদায় অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি পুতিন অংশ নিচ্ছেন. এই বুধবারেই ২২শে আগষ্ট, খেলোয়াড় ও দলের সদস্যরা গ্রেট ব্রিটেন উড়ে যাচ্ছেন.