সোমবারে চিনের কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় পরিষদের প্রাক্তন পলিটব্যুরো সদস্য ও চুনতসিন শহরের দলীয় পরিষদের সচিব বো সিলাইয়ের স্ত্রী গু কাই লাইকে বিচারের রায় দেওয়া হয়েছে. ব্রিটেনের ব্যবসায়ী নিল হেইউডকে হত্যার দায়ে তাঁকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে, যা কার্যকরী করার কথা দুই বছর পরে.

পর্যবেক্ষকরা উল্লেখ করেছেন যে, এই বিচার হয়েছে খুবই দ্রুত. আদালতে এর শুনানী হয়েছে মাত্র একদিন, প্রসঙ্গতঃ গু কাই লাই সঙ্গে সঙ্গেই সম্পূর্ণ ভাবে নিজের অপরাধ স্বীকার করে নিয়েছেন. অভিযুক্তের পক্ষের উকিল শুধু চেষ্টা করেছিলেন রায় সামান্য নরম করার. আদালতে বলা হয়েছে যে, গু কাই লাই এই হত্যার সময়ে এক স্নায়বিক দৌর্বল্যের শিকার হয়েছিলেন. হেইউড উকিলদের কথা অনুযায়ী তাঁকে ব্ল্যাকমেল করছিল, তাঁর ছেলের নিরাপত্তার প্রশ্ন উঠেছিল. এই প্রসঙ্গে সব দেখে শুনে মনে হয়েছে যে, এই ব্ল্যাকমেল করা হয়েছিল এই ভাবে যে, হেইউড ভয় দেখাচ্ছিল যে, সে বো সিলাইয়ের পরিবারের বিদেশে টাকা পাঠানোর ব্যাপার জনসমক্ষে ফাঁস করে দেবে.

তা স্বত্ত্বেও, ব্রিটেনের নাগরিককে হত্যা করার বিষয়ে যে অর্থনৈতিক কারণ ছিল, তা বিচারের বাইরে থেকে গিয়েছে. দুর্নীতি বা অর্থনৈতিক অপরাধ নিয়ে গু কাই লাইকে কোন শাস্তি দেওয়া হয় নি. এর অর্থ হতে পারে যে, চিনা কমিউনিস্ট পার্টির ১৮তম সাধারন সম্মেলনের আগে সরকার খুব একটা উত্সাহী নয় এই স্ক্যান্ডালকে আরও বাড়িয়ে দিতে. বরং উল্টো – সবই করা হয়েছে যাতে এই ব্যাপারে একটা ফুলস্টপ দ্রুত দেওয়া যেতে পারে. খুবই সম্ভবতঃ যে, বিচারাধীন – গু কাই লাই ও তাঁর সাকরেদ – আদালতের সঙ্গে একটা রফায় এসেছে. এখনই বলা হচ্ছে যে, তারা রায়ের বিরুদ্ধে কোনও আবেদন করবে না. আর এর অর্থ হল যে, ধীরে হলেও এই বিষয় লোকের মনোযোগের আড়ালে চলে যাবে. সোমবারে বিচারালয় একই সঙ্গে খুবই দ্রুত চারজন উচ্চ পদস্থ পুলিশ কর্মীর বিরুদ্ধেও রায় দিয়েছে, তদন্তের ফলে জানা গিয়েছে যে, তারা বো সিলাই ও তার স্ত্রীর অপরাধকে চাপা দিতে চেয়েছিল. গু কাই লাই সম্বন্ধে যা বলা যেতে পারে, তা হল যে, কোনও সন্দেহ নেই বছর দুয়েক পরে তার মৃত্যুদণ্ড পাল্টে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হবে ও কিছু সময় পরে তাকে চিকিত্সা সংক্রান্ত কারণে ছেড়ে দেওয়া হবে, কারণ আদালতে একাধিকবার তাঁর মানসিক স্থিতির কথা তোলা হয়েছিল ও ভাল হয়েছিল যে, তিনি মানসিক ভাবে সুস্থ নন.

এটা স্পষ্ট যে, বো সিলাইয়ের পরবর্তী রাজনৈতিক ক্যারিয়ারে একটা দাঁড়ি পড়ল.তাঁর স্ত্রীকে খুবই বড় অপরাধের জন্য ধরা হয়েছে. কিন্তু এর মানে এই নয় যে, চিনের কমিউনিস্ট পার্টির বামপন্থী পক্ষের উপরে চাপ সৃষ্টি করা হবে, যাদের প্রতিনিধি ছিলেন বো সিলাই, - এই কথাই “রেডিও রাশিয়াকে” উল্লেখ করে মস্কো রাষ্ট্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের এশিয়া ও আফ্রিকার দেশ গুলি নিয়ে গবেষণা ইনস্টিটিউটের ভাইস ডিরেক্টর আন্দ্রেই কারনেয়েভ বলেছেন:

“কিছু সময়ের জন্যে চিনে রাজনৈতিক ভাবে দলীয় মতবিরোধ স্তিমিত হয়েছে, কারণ সকলেই দুর্নীতির প্রচণ্ড বিশাল আকার দেখে ভয় পেয়েছেন, যা বো সিলাইয়ের নামের সঙ্গে যোগ হয়েছে. বাম পন্থী মতের প্রতিনিধিরা স্রেফ কিছু সময়ের জন্য বক্তৃতা দেওয়া বন্ধ রেখেছিলেন. এখন দেখা গেল যে, বাম পন্থী মত এক রকম ভাবে আবার স্বীকার করে নেওয়া হয়েছে. প্রধান হল যে, এটা রাজনীতিবিদের স্ত্রীর অপরাধ. তাকে ও তার নবসমাজতান্ত্রিক সংশোধনবাদের মডেল আঘাতের সম্ভাবনা থেকে মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে.

আগে সকলেই তৈরী হয়েছিলেন যে, বো সিলাই এই মামলা চিনের বামপন্থী রাজনীতির উপরে এক প্রবল আঘাত হিসাবে আসবে ও তার সমস্ত যাওয়ার রাস্তাই বন্ধ করে দেওয়া হবে, যা রাষ্ট্রের, দেশের সব কিছু বিষয়ে নিয়ন্ত্রণের অধিকার ও সক্রিয় সামাজিক রাজনীতির উপরে জোর দিয়ে করা হয়েছিল. এখন দেখা গেল যে, এটা কোন খারাপ ব্যাপার নয়, আর বো সিলাই শুধু এই কারণেই দোষী যে, তাঁর স্ত্রী অপরাধ করেছেন”.

বিচারের সময়ে বো সিলাইয়ের নামও নেওয়া হয় নি. তাই খুবই কম সম্ভব যে, গু কাই লাইয়ের বিচারের পরে রাজনীতিবিদের দিকেও কোন অভিযোগ তোলা হবে. চিনা কমিউনিস্ট পার্টির ১৮তম সম্মেলনের ঠিক আগেই কেউই আগ্রহী নয় এমনিতেই জটিল পরিস্থিতিকে আরও জটিল করে তুলতে, তার ওপরে কথা হচ্ছে নতুন প্রজন্মের রাজনৈতিক নেতাদের হাতে দেশের ক্ষমতা হস্তান্তরের সময়ে. কারণ বো সিলাইয়ের আচমকা পদত্যাগের আগে অষ্টাদশ সম্মেলনের একটি ফল হিসাবে মনে করা হচ্ছিল, তাঁর কোন দলীয় ভাবে নেতৃত্বের পদেই উঠে আসার.