সিরিয়ায় বিরোধীপক্ষের তথাকথিত সিরিয়ার জাতীয় পরিষদ জর্ডান ও তুরস্কের সাথে সিরিয়ার সীমানার কাছে উড়ান-হীন এলাকা গঠনের প্রয়োজনীয়তার কথা ঘোষণা করেছে, যা বিদেশী শক্তি সুনিশ্চিত করতে পারে. এ সম্বন্ধে পশ্চিমী প্রচার মাধ্যমকে বলেছেন সিরিয়ার জাতীয় পরিষদের প্রধান আব্দেল বাসেত সিদা. তাঁর কথায়, সিরিয়ার সরকারী বিমান বাহিনী রবিবার খালেব (আলেপ্পো) শহরের জঙ্গীদের দ্বারা দখলিত পাড়াগুলির উপর বোমাবর্ষণ সক্রিয় করেছে. উড়ান-হীন এলাকা গঠনের সম্ভাবনার প্রশ্ন এর প্রাক্কালে উত্থাপিত হয়েছিল শনিবার ইস্তাম্বুলে মার্কিনী পররাষ্ট্র সচিব হিলারী ক্লিন্টনের তুরস্ক সফরের সময় তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেত দউতওগলুর সাথে আলাপে. তাছাড়া তাঁরা “সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাশার আসদ-কে অপসারণের পরে সিরিয়ার গণতান্ত্রিক উত্তরণ” সুনিশ্চিত করার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক ও সিরিয়ার বিরোধীপক্ষের “একক স্থিতি প্রণয়নের” বিষয় আলোচনা করেন. ইস্তাম্বুল সাক্ষাতের পরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও তুরস্ক সিরিয়ার পরিস্থিতিতে প্রতিক্রিয়ার জন্য ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন সম্বন্ধে সমঝোতায় এসেছে. ক্লিন্টন তাছাড়া জানান যে, সিরিয়ার বিরোধীপক্ষকে অ-সামরিক সাহায্যের জন্য ওয়াশিংটন নিকট ভবিষ্যতে ৫৫ লক্ষ ডলার বরাদ্দ করবে. এ সম্ভাবনা বাদ দেওয়া যায় না যে, উড়ান-হীন এলাকার প্রশ্ন আরব রাষ্ট্র লীগের সদস্য দেশগুলির পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের জরুরী বৈঠকে আলোচিত হবে. এ বৈঠক হওয়ার কথা ছিল গত রবিবার, কিন্তু তা স্থগিত রাখা হয়েছে কারণ ঘোষণা না করে.