লন্ডন অলিম্পিকে রাশিয়ার হয়ে জুডো প্রতিযোগিতায় আর্সেন গালস্টিউআন ১ম স্বর্ণ পদক লাভ করেছেন. ফাইনাল পর্বে নির্ধারিত ৬০ কেজি ওজনের ক্যাটাগোরীতে জাপানের হিরোআকি হিরোওকিউকে পরাজিত করেন তিনি. প্রতিযোগিতার ৪১ সেকেন্ডে আর্সেন এ বিজয় নিশ্চিত করেন. আর্সেন গালস্টিউআন শুধুমাত্র লন্ডন অলিম্পিকে রাশিয়ার হয়ে পদক লাভের সূচনা করেন নি বরং জুডো চ্যাম্পিয়ানে দেশের পক্ষে আধুনিক ইতিহাস গড়েছেন.

২৩ বছর বয়সী রাশিয়ার জুডো খেলোয়াড় তার এই বিজয় শুধুমাত্র নিকটজন ছাড়াও ক্রাসনাদারে যারা বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তাদের প্রতি উত্সর্গ করেছেন. ওই এলাকায় আর্সেন জন্মগ্রহণ করেন.

আর্সেন গালস্টিউআনকে ব্রিটেনের ধারাভাস্যকাররা “রাজাদের হত্যকারী” বলে অভিহিত করেছেন. যাদের সাথে আর্সেন প্রতিযোগিতায় মুখোমুখি হয়েছেন তারা সবাই ছিলেন ফেবারিট. কোয়ার্টার ফাইনালে তার প্রতিপক্ষ ছিলেন গতবারের এশিয়া চ্যাম্পিয়ন চোই গাভান হোন, সেমিফাইনালে আর্সেন মুখোমুখি হন গত দুবছরের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন উজবেকিস্তানের রিশোদ সোবিরোভের সাথে. তবে ফাইনালে আর্সেন লড়েন তিনবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হিরোআকি হিরোওকিউর সাথে. ষ্টেডিয়ামের গ্যালারীতে উপস্থিত থাকা জাপানীজ দর্শকরা মুহূর্তেই নিস্তব্ধ হয়ে যায়.

‘আমি লন্ডনে এসেছি শুই স্বর্ণ পদকের আশায়’. খেলা শেষে সাংবাদিকদের কাছে নিজের অনুভূতি এভাবেই জানালেন আর্সেন গালস্টিউআন. তিনি আরও বলেন, “আমি স্বপ্ন দেখতাম, চেষ্টা করেছি এবং কঠোর অনুশীলন করেছি যাতে আমি অলিম্পিক চ্যাম্পিয়ন হতে পারি. স্বর্ণ পদের জন্যই এ লন্ডন অলিম্পিকে আমি এসেছি এবং সর্বশেষ সময় পর্যন্ত আমার দৃড় বিশ্বাস ছিল যে এই পদক আমিই পাব”.

সাংবাদিকরা আর্সেনকে প্রশ্ন করেছিল কিভাবে তিনি এ বিজয় অর্জন করেছেন বিশেষকরে সর্বশেষ রাউন্ডে. উত্তরে তিনি বলেন, আমার দৃড় সংকল্প, সাহসিকতা ও কৌশল. সঠিক পন্থায় এগিয়ে যাওয়ার কথা কোচ বলেছিলেন তবে আমি সাহসিকতাকেই এগিয়ে রেখেছিলাম. যদিও আমার প্রতিপক্ষের সবাই ছিল শক্তিশালী এবং তারা আমাকে হারানোর জন্যই লন্ডনে এসেছিল.

 

আর্সেন গালস্টিউআনকে স্বাগত জানানোর জন্য শনিবার বিকেলে কেনসিনগাতোন্সের রাশিয়ার বাড়ীতে রক ফ্যাস্টিভ্যাল কিছুটা বিলম্ব করেই শুরু করা হয় যাতে সবাই একত্রে রাশিয়ার পক্ষে লন্ডন অলিম্পিকে ১ম স্বর্ণ পদক অর্জনকারীকে অভিনন্দন জানাতে পারে. লন্ডনের পাবগুলোতে বসে খেলা উপভোগ করেছেন এমন রুশি সমর্থকরাও আর্সেনের বিজয় উত্সবে মেতে উঠেছিল.

অলিম্পিকের ২য় দিনে রাশিয়ার খেলোয়াড়রা লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন. এদের মধ্যে ভিচ ভলিবলে রাশিয়ার আনাসতাসিয়া ভাসিনা ও আন্না বাজাকোবা ২-১ গোলে চীনকে পরাজিত করে. রাশিয়ার গোলক নিক্ষেপ দলও পদকের জন্য লড়াই করছে এবং তারা আঙ্গোলার বিরুদ্ধে জয়ী হয়েছে. তবে রুশ বাস্কেটবল দলকে সমর্থন জানাতে মাঠে পৌঁছান প্রধনমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ. কানাডা দলকে হারাতে অনেক কষ্টই করতে হয়েছে রুশিদের.

এদিকে টেনিস খেলোয়াড়রাও আনন্দের সংবাদ দিয়েছে. রাশিয়ার ভেরা জভানারেভা সুইডেনের সোপিয়া আরবিদসনকে পরাজিত করে.