রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন বৃহস্পতিবার বলেছেন যে, অস্ত্রসজ্জার রাষ্ট্রীয় কর্মসূচির কাঠামোতে সমস্ত পরিকল্পনা সময়মতো পুরণ করা উচিত. রাশিয়া অস্ত্র প্রতিযোগিতায় নামতে চাইছে না. তবে, রাশিয়ার পারমাণবিক ক্ষমতা এবং আকাশ ও মহাকাশ প্রতিরক্ষার নির্ভরযোগ্যতা ও ফলপ্রসূতায় কোনো সন্দেহ থাকা উচিত্ নয়, বলেছেন পুতিন অস্ত্রসজ্জার রাষ্ট্রীয় কর্মসূচি বাস্তবায়ন সংক্রান্ত বৈঠকে. রাষ্ট্রপতি জোর দিয়ে বলেন যে, এ সব শক্তির উপর রাশিয়ার নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করায় বিশেষ দায়িত্ব আরোপিত হচ্ছে. তিনি উল্লেখ করেন, “এ কথা পারমাণবিক অস্ত্রের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য, যা রাশিয়ার সার্বভৌমত্ব ও ভূভাগীয় অখণ্ডতার গুরুত্বপূর্ণ গ্যারান্টি”. রাশিয়ার পারমাণবিক অস্ত্র “বিশ্বব্যাপী ও আঞ্চলিক ভারসাম্য ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখায় মুখ্য ভূমিকা পালন করছে”, যোগ করে বলেন পুতিন. তাঁর কথায়, আকাশ ও মহাকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থারও বিপুল গুরুত্ব রয়েছে. তা সর্বদা যুদ্ধ-প্রস্তুতির অবস্থায় থাকা উচিত্, সম্ভাব্য প্রতিপক্ষের আক্রমণের উপায় বিকাশের পরিকল্পনা বিবেচনায় রাখা উচিত্ তার, বলেন রাষ্ট্রপতি. পুতিন আরও বলেন যে, ২০২০ সাল পর্যন্ত অস্ত্রসজ্জার রাষ্ট্রীয় কর্মসূচি প্রণয়নের সময় রাশিয়ায় প্রয়োজনীয় স্ট্র্যাটেজিক পারমাণবিক উদ্যোগের গ্রুপ এবং সামরিক মহাকাশ প্রতিরক্ষা বাহিনীর ব্যবস্থা করা হয়েছে. তাঁর কথায়, “ফলে ২০২০ সাল নাগাদ স্ট্র্যাটেজিক পারমাণবিক শক্তি সংক্রান্ত আধুনিক অস্ত্রসজ্জা হওয়া উচিত্ ৭৫-৮৫ শতাংশ, আর সামরিক মহাকাশ প্রতিরক্ষা বাহিনীতে – অন্ততপক্ষে ৭০ শতাংশ”.