আলোচ্যসূচীতে – রাশিয়া ও ভারতের গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলি

‘সিস্টেমা’ কোম্পানী কি ভারত ছেড়ে চলে যাবে? সম্ভবতঃ এই প্রশ্ন নিয়ে আলোচনা হবে রাশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী ও ইন্দো-রুশী আন্তঃসরকারী কমিশনের সহ-সভাপতি দমিত্রি রগোজিনের ভারত সফরকালে. ১৭ই জুলাই নয়াদিল্লীতে তিনি উপরোক্ত কমিশনের অন্য সহ-সভাপতি ভারতের বিদেশমন্ত্রী সি.এম. কৃষ্ণের সাথে বৈঠক করবেন.

ভারতে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আলেক্সান্দর কাদাকিন বলছেন – রাশিয়ার নতুন গঠিত মন্ত্রীসভার সদস্য ও রাশিয়ার তরফ থেকে দ্বি-পাক্ষিক আন্তঃসরকারী কমিশনের নেতার ভূমিকায় রগোজিনের এটাই প্রথম ভারত সফর. কাদাকিন বলছেন, যে ভারতের সাথে অর্থনৈতিক, বিজ্ঞান-প্রযুক্তিগত ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে সহযোগিতাকে আমাদের দেশে অত্যন্ত গুরুত্ব দেওয়া হয়.

রাষ্ট্রদূত বলছেন – কমিশনের আলোচ্যসূচীতে বিভিন্ন বিষয় রয়েছে, যার মধ্যে পারমানবিক শক্তির ক্ষেত্রে সফল প্রকল্পাবলী, বিশেষতঃ কুদানকুলামে পারমানবিক বিদ্যুতকেন্দ্র. সেখানে প্রথম ব্লকটি চালু হওয়ার জন্য প্রায় তৈরি. দ্বিতীয় ব্লকের কাজও প্রায় শেষ হতে চলেছে. আলোচনা হবে তৃতীয় ও চতুর্থ ব্লক বানানো নিয়ে. নতুন প্রযুক্তি ব্যবহৃত রাশিয়া নির্মিত নিরাপদ পারমানবিক বিদ্যুতকেন্দ্র ভারতের অর্থনীতির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ. ভারতে শান্তিপূর্ণ পরমানুর ব্যবহার নিয়েও আলোচনা হবে. আগামী এক দশকে ভারতে রাশিয়ার ১৪-১৬টা এনার্জি ব্লক নির্মাণ করার কথা. রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আরও বলছেন, যে ইন্দো-রুশী সামরিক প্রযুক্তিগত সহযোগিতা নিয়েও আলোচনা হবে, কারণ দমিত্রি রগোজিন রাশিয়ার ক্যাবিনেট মন্ত্রীসভায় সামরিক প্রযুক্তিমন্ত্রী.

‘সিস্টেমা’ কোম্পানীর বিষয়টি ইন্দো-রুশী সহযোগিতার ক্ষেত্রে একটা সমস্যা. এই বড় রুশী আর্থিক কর্পোরেশন ভারতের অর্থনীতিতে ৩০০ কোটি ডলারেরও বেশি অর্থ বিনিয়োগ করেছে. তার শাখা কোম্পানী ‘সিস্টেমা শ্যাম টেলিসার্ভিসেস লিমিটেড’ গত কয়েক বছর ধরে ১,৫ কোটি ভারতীয়কে পরিষেবা দেয়. কিন্তু গত ফেব্রুয়ারী মাসে ভারতের সুপ্রীম কোর্ট কয়েকটি সেলফোন অপারেটরের লাইসেন্স সেপ্টেম্বর মাস থেকে বাজেয়াপ্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়, এই অভিযোগে, যে দেশের যোগাযোগ মন্ত্রণালয় আইন লঙ্ঘন করে ঐ সব লাইসেন্স দিয়েছিল. এর কোপে পড়েছে ‘সিস্টেমা’. ফলে তারা ২২টি রাজ্যের মধ্যে ২১টিতেই পরিষেবা দেওয়ার অধিকার হারাবে, সেই সব রাজ্যে, যেখানে ২০০৮ সালের পর থেকে পরিষেবা দেওয়া শুরু হয়েছিল. নতুন পরিস্থিতিতে আবার ভারতে সেলফোন অপারেটরদের জন্য নীলামের আয়োজন করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে, আর সেখানে অংশগ্রহকারীদের কাছ থেকে ওয়েভ পাওয়ার জন্য ১০ গুন বেশি দাম চাওয়া হয়েছে. যদি সরকার এই শর্ত পরিবর্দ্ধন না করে, তবে কয়েকটি বিদেশী অপারেটরের মতো ‘সিস্টেমা’ও বাধ্য হবে ভারতের বাজার পরিত্যাগ করতে.

আমার মনে হয়, যে ভারতীয় পক্ষের সাথে দমিত্রি রগোজিনের বৈঠকে ‘সিস্টেমা’ কোম্পানীর বিষয় নিয়ে অবশ্যই আলোচনা হবে – বলছেন রাষ্ট্রদূত আলেক্সান্দর কাদাকিন. কারণ তিনশো কোটি ডলার, যা ঐ কোম্পানী ভারতে বিনিয়োগ করেছে, সেখানে রাশিয়ার সরকারী অর্থও প্রচুর. উদ্ভূত পরিস্থিতি আমাদের পক্ষে কোনোমতেই গ্রহণযোগ্য নয়. রাশিয়া এই সমস্যার ইতিবাচক নিষ্পত্তির জন্য যুঝে যাবে. আমরা কোনোমতেই চাই না, যে রাশিয়ার করদাতাদের দেওয়া অর্থ ব্ল্যাক হোলে হারিয়ে যাক.

রাশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী দমিত্রি রগোজিন ভারত সফর করতে যাচ্ছেন উচ্চস্তরের এক প্রতিনিধিদল নিয়ে. তার মধ্যে থাকবে সেই সব দপ্তরের প্রধানরা, যারা ভারতের সাথে দ্বি-পাক্ষিক সহযোগিতায় জড়িত. তাছাড়াও সেই সব ব্যবসায়ীরা, যারা ভারতের সাথে ব্যবসায়িক সম্পর্ক গড়তে চায়. রগোজিনকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংও আমন্ত্রণ জানিয়েছেন. তার ভারতীয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভার আরও কিছু সদস্যের সাথে সাক্ষাত হবে. এই সফর ঐতিহ্যগত দুই দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের বার্ষিক শীর্ষবৈঠকের প্রস্তুতিস্বরূপ. এই বছরে সেটা হবে ভারতে. শরত্কালে রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন নয়াদিল্লী যাবেন.